লজ্জার হারের পরে ইডেনের গ্যালারিতে নিজেকেই জুতোপেটা বাংলাদেশ সমর্থকের- ভিডিয়ো

চলতি বিশ্বকাপে প্রিয় দলের টানা ৫ নম্বর হার দেখার পরে বাংলাদেশের সমর্থকরা কতটা হতাশ, প্রমাণ মিলল ইডেনের গ্যালারিতে। বিশেষ করে নেদারল্যান্ডসের কাছে লজ্জার হার কোনওভাবেই মেনে নিতে পারছেন না বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা। ক্রিকেটারদের উপর কতটা ক্ষুব্ধ তারা, সেটা বোঝা যায় তাঁদের আচরণে।শনিবার নেদারল্যান্ডসের কাছে বাংলাদেশের ৮৭ রানে হারের পরে ইডেনের গ্যালারিতে একদল বাংলাদেশ সমর্থককে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায়।

তাঁদের দাবি, বড় দলের কাছে হারলে কিছু মনে হয় না। তবে নেদারল্যান্ডসের কাছেও হারতে হচ্ছে, এটা মেনে নেওয়া যায় না।শাকিব, মুশফিকুরদের উদ্দেশ্যে কয়েকটি কটু কথাও বলে ফেলেন বাংলাদেশের এক সমর্থক। তিনি শেষে নিজেজেই জুতোপেটা করেন এই বলে যে, ‘শাকিবদের বদলে আমি নিজেকেই জুতোপেটা করছি।’বাংলাদেশের আরও এক সমর্থক ঘটনাটি ক্যামেরাবন্দি করেন। তাঁকে বলতে শোনা যায় যে, ‘বাংলাদেশ থেকে কত কষ্ট করে এসেছে সবাই। হোটেল পায়নি অনেকে। মাঠে এসে এমন খেলা দেখে সবাই হতাশ। এতটাই হতাশ যে, খেলা দেখা ছেড়ে দেবে বলছে। এই কটা রান যদি না করতে পারে, তাহলে খেলা দেখে কী লাভ!’

```

উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, ইডেনের গ্যালারিতে ক্ষোভ প্রকাশ করা বাংলাদেশ সমর্থকদের মধ্যে তামিম ইকবালের সমর্থনে পোস্টারও চোখে পড়ে। অর্থাৎ, তামিমকে যে অন্যায়ভাবে বিশ্বকাপের দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে, সেই দাবিও স্পষ্ট তাঁদের আচরণে।উল্লেখ্য, শনিবার ইডেনে নেদারল্যান্ডসের কাছে লো-স্কোরিং ম্যাচে হার মানে বাংলাদেশ। টস জিতে শুরুতে ব্যাট করতে নামে নেদারল্যান্ডস। যদিও নিয়মিত অন্তরে উইকেট হারাতে থাকায় বড় রানের ইনিংস গড়া সম্ভব হয়নি ডাচদের পক্ষে। নেদারল্যান্ডস ৫০ ওভারে ২২৯ রানে অল-আউট হয়ে যায়। এর জবাব এর মুখ থুবড়ে পড়ে বাংলাদেশ, দেখুন বাংলাদেশি সমর্থকদের সেই ভিডিও:

৬টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৮৯ বলে দলের হয়ে সব থেকে বেশি ৬৮ রান করেন ক্যাপ্টেন স্কট এডওয়ার্ডস। ২টি করে উইকেট নেন মুস্তাফিজুর রহমান, মেহেদি হাসান, তাসকিন আহমেদ ও শরিফুল ইসলাম।পালটা ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ ৪২.২ ওভারে মাত্র ১৪২ রান অল-আউট হয়ে যায়।

```

দলের হয়ে সব থেকে বেশি ৩৫ রান করেন মেহেদি হাসান মিরাজ। ৪০ বলের ইনিংসে তিনি ৫টি চার ও ১টি ছক্কা মারেন। পল ভ্যান মিকেরেন ২৩ রানে ৪টি উইকেট দখল করেন। ম্যাচের সেরা হন তিনিই।

এই পরাজয় দিয়ে বাংলাদেশ দল প্রমাণ করে দিল যে বিশ্বকাপে কোনভাবেই তারা জয় লাভ করতে আসেনি বরং প্রত্যেক দলকে ২ point করে দিতে এসেছে।