“৫ বোলার না,সিরাজরা ছাড়াও দলে এক ইনসুইং বোলার আছে” ৬ নাম্বার বোলার খুঁজে দিলেন দ্রাবিড় !

এই মুহূর্তে দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছে ভারতীয় দল এবং একের পর এক ম্যাচে দুরন্ত জয় লাভ করে বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে ইতিমধ্যেই টিম ইন্ডিয়া পৌঁছে গেছে। দক্ষিণ আফ্রিকা কেউ রীতিমতো ল্যাজে গোবরে করে পরাজিত করেছে ভারতীয় দল। তবে এই মুহূর্তে ভারতীয় দলের সবথেকে বড় সমস্যা হলো হার্দিক পান্ডিয়া চোটের কারণে দলের বাইরে চলে গেছে সেই জায়গায় একজন ব্যাটসম্যান হিসেবে সূর্য কুমার যাদব খেলবেন কিন্তু সে ক্ষেত্রে যেহেতু সূর্য কুমার বল করবেন না তাই একটি বোলার কমে যাচ্ছে এবং পাঁচটি বোলার থেকে যাচ্ছে বোলিং ডিপার্টমেন্টে। এই অবস্থায় যদি কখনো অতিরিক্ত বোলার দরকার পরে তাহলে কে বোলিং করবে সেই নিয়ে হচ্ছে নানা প্রশ্ন।

কাউকে যদি জিজ্ঞেস করা হয়, ২০১১ সালের চ্যাম্পিয়ন দলের সঙ্গে বর্তমান ভারতীয় দলের পার্থক্য কোথায়! প্রায় বেশির ভাগই বলবেন, ওই দলের ব্য়াটাররা বোলিং করতে পারতেন। মাস্টার ব্লাস্টার সচিন তেন্ডুলকর, সেওয়াগ, যুবরাজ, রায়না- নানা বোলিং বিকল্প। বর্তমান ভারতীয় দলে পাঁচ স্পেশালিস্ট বোলার। হার্দিক পান্ডিয়া ছিটকে যাওয়ায় ষষ্ঠ বোলারের অপশন থাকছে না। দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক তেম্বা বাভুমা সেটাকেও ভারতের ‘দুর্বল’ দিক হিসেবে মনে করছেন। ভারতের কি ষষ্ঠ বোলিং বিকল্প সত্যিই নেই? হেড কোচ রাহুল দ্রাবিড় অবশ্য মজার ছলে এর উত্তর দিলেন।

```

সাংবাদিক সম্মেলনে দারুণ মেজাজে দেখা গেল টিম ইন্ডিয়ার হেড কোচ রাহুল দ্রাবিড়কে। এমনটাই যেন কাঙ্খিত। দল সাতটির মধ্যে সাতটি ম্যাচই জিতেছে। টুর্নামেন্টের সবচেয়ে ধারাবাহিক। সেই অর্থে এ বারের বিশ্বকাপে এখনও অবধি ষষ্ঠ বোলিং বিকল্পের গুরুতর প্রয়োজন পড়েনি। ভারতীয় বোলিং আক্রমণ বিধ্বংসী ফর্মে রয়েছে। তবে একান্তই প্রয়োজন পড়লে! তেম্বা বাভুমার ‘ভাবনা’কে অবশ্য় উড়িয়ে দিচ্ছেন না দ্রাবিড়।প্রোটিয়া অধিনায়কের প্রশ্নের রেশ ধরে রাহুল দ্রাবিড় বলেন, ‘যেটা ফ্যাক্ট সেটাই বলেছে। আমাদের হয়তো সত্যিই ষষ্ঠ বোলিং বিকল্প নেই। আমাদের যা কম্বিনেশন, তাতে সেই পরিস্থিতি নেই যে বাড়তি বোলার খেলানো যাবে।’

এরপরই দ্রাবিড়ের মুখে চওড়া হাসি। যোগ করলেন, ‘তবে একান্তই প্রয়োজন পড়লে আমরা কিন্তু রং ফুটেড ভয়ঙ্কর সুইং বোলারকে ডাকতে পারি। দর্শকরাও চায় ও বোলিং করুক। কিছু ম্যাচে কয়েক ওভারের জন্য বিরাটকে ভাবছি। গত ম্যাচেও দর্শকরা চাইছিল কোহলি বোলিং করুক। ওকে বোলিং করানোর ইচ্ছেও ছিল। যদিও শেষ অবধি আর করানো হয়নি।’পুনেতে বাংলাদেশ ম্যাচে চোট পেয়েছিলেন হার্দিক পান্ডিয়া। তাঁর সেই ওভার কমপ্লিট করানো হয় বিরাট কোহলিকে দিয়ে। দর্শকরা ব্যাপক খুশি হয়েছিল বিরাটকে বোলিং করতে দেখে।

```

গত ম্যাচেও ওয়াংখেড়েতে দেখা যায়, বিরাট ওয়ার্ম আপ এবং বোলিং শ্যাডো করছে। যদিও শ্রীলঙ্কা মাত্র ৫৫ রানেই গুটিয়ে যাওয়ায় বিরাটের আর বোলিং করা হয়নি। বিরাটের পাশাপাশি প্রয়োজনে সূর্যকুমার যাদব, রোহিতদের দিয়ে এক দু-ওভার করানো যেতে পারে, এমন ইঙ্গিতও দিয়ে রাখলেন দ্রাবিড়। পুনেতে বাংলাদেশ ম্যাচে চোট পেয়েছিলেন হার্দিক পান্ডিয়া। তাঁর সেই ওভার কমপ্লিট করানো হয় বিরাট কোহলিকে দিয়ে। দর্শকরা ব্যাপক খুশি হয়েছিল বিরাটকে বোলিং করতে দেখে।

গত ম্যাচেও ওয়াংখেড়েতে দেখা যায়, বিরাট ওয়ার্ম আপ এবং বোলিং শ্যাডো করছে। যদিও শ্রীলঙ্কা মাত্র ৫৫ রানেই গুটিয়ে যাওয়ায় বিরাটের আর বোলিং করা হয়নি। বিরাটের পাশাপাশি প্রয়োজনে সূর্যকুমার যাদব, রোহিতদের দিয়ে এক দু-ওভার করানো যেতে পারে, এমন ইঙ্গিতও দিয়ে রাখলেন দ্রাবিড়।