পাকিস্তানি বোলারদের দুরমুশ করে এবার মুখ খুললেন বেন স্টোকস!

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে অন্যতম একটি অবিশ্বাস্য ম্যাচের সাক্ষী থাকলো ক্রিকেট বিশ্ব। একটা লম্বা সময় পর পাকিস্তানের মাটিতে টেস্ট ক্রিকেট খেলতে গেছে ইংল্যান্ডের দল, কিন্তু বর্তমানে ইংল্যান্ডের খেলার গতিপ্রকৃতি এমন যে তারা টেস্ট ক্রিকেট কেউ টি-টোয়েন্টির মতো খেলছে। ম্যাচের আগের দিনও ইংল্যান্ড শিবির নিশ্চিত ছিল না তারা এগারোজন সুস্থ ক্রিকেটারকে মাঠে নামাতে পারবে কিনা। ব্রিটিশ স্কোয়াডের বেশিরভাগ ক্রিকেটার হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় টেস্ট একদিন পিছিয়ে দেওয়ার কথাবার্তা চলছিল অথচ ঐতিহাসিক টেস্ট সিরিজ এবং সেই সিরিজের শুরুতেই ইতিহাস গড়ে ইংল্যান্ড দল।

খেলা শুরু হবার সাথে সাথে ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা পাকিস্তানের বোলারদের উপর তীব্র আক্রমণ শুরু করে দেয়। পাকিস্তানি বোলারদের এক্ষেত্রে করার কিছু ছিল না তার কারণ পাকিস্তান একটা ব্যাটিং পিচ তৈরি করেছে যাতে তাদের ব্যাটসম্যানরা ভালো রান করতে পারে কিন্তু তারা এটা ভাবেনি যে বিপক্ষ দল সেই পিচের ব্যবহার করে ভালো ব্যাটিং করতে পারে।রাওয়ালপিন্ডির বাইশগজ যে পুরো ব্যাটিং পিচ সেটা বুঝতে অসুবিধা হয়নি ইংল্যান্ড দলনায়ক বেন স্টোকসের। তাই টস জিতে শুরুতে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন।ইংল্যান্ড প্রথম দল হিসেবে টেস্টের প্রথম দিনেই ৫০০ রানের গণ্ডি টপকে যায়।

এই প্রথমবার টেস্টের প্রথম দিনে কোনও দলের চারজন ব্যাটসম্যান সেঞ্চুরি করেন। ইংল্যান্ড ওপেনার ক্রলি ১২২ রান করেন। ওপর ওপেনার বেন ডাকেট ১০৭ রান করেন।অলি পোপ ১০৮ রান করেন। হ্যারি ব্রুক ১০১ রানে নট আউট এবং বেন স্টোকস ১৫ বলে ৩৪ নট আউট। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, সারা দিনের ৯০ ওভারের কোটাও পূর্ণ হয়নি। খেলা শেষ হয় অনেক আগেই। তাতেই ৫০০ রানের গণ্ডি টপকেছে ইংল্যান্ড। বেন স্টোকস স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন যে “এটাই আমাদের খেলার ধরন এবং আমরা এই ভাবেই খেলব। বিপক্ষ দলকে খেলার মধ্যে ফেরার আমরা কোন সুযোগ দিতে চাই না। আমরা এইভাবে অ্যাটেকিং ক্রিকেট খেলতে চাই, ডিফেন্স করার তো কোনো প্রশ্নই নেই”

তারা প্রথম দিনের শেষে ৭৫ ওভারে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ৫০৬ রান তুলেছে।জ্যাক ক্রাউলি ৮৬ বলে ব্যক্তিগত সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। তিনি শেষমেশ ২১টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১১১ বলে ১২২ রান করে আউট হন। বেন ডাকেট ১০৫ বলে শতরানের গণ্ডি টপকান। তিনি ১৫টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১১০ বলে ১০৭ রান করে মাঠ ছাড়েন। ওলি পোপ ৯০ বলে সেঞ্চুরি করেন। তিনি ১৪টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১০৪ বলে ১০৮ রান করে সাজঘরে ফেরেন।

সব মিলিয়ে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের ব্যাটিং পিচ করার যে সিদ্ধান্ত সেটা পুরোপুরি উল্টো হয়ে গেছে। ব্যাটিং পিচ তারা তৈরি করেছিল নিজেদের ব্যাটসম্যানদের জন্য কিন্তু তারা এটা ভুলে যায় যে বিপক্ষ দলের ব্যাটসম্যানরাও কিন্তু সেই পিচে ব্যাটিং করবে। তাই রীতিমতো সিমেন্টের পিচের মতো ব্যাটিং পিচে দুরন্ত ব্যাটিং করতে দেখা যায় ইংল্যান্ড ক্রিকেটার।