ফার্স্ট ইনিংসে রেকর্ড রান করে পাকিস্তানকে ব্যাট করতে ডাকলো ইংল্যান্ড!

একটা লম্বা সময় পর পাকিস্তানের মাটিতে সিরিজ খেলতে গেছে ইংল্যান্ড। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলেছিল ইংল্যান্ড আর এবার টেস্ট সিরিজ শুরু হয়েছে। কিন্তু টেস্ট সিরিজ যে এইভাবে শুরু হবে সেটা হয়তো কেউ কল্পনা করতে পারেনি। ইংল্যান্ড স্পষ্টভাবেই জানিয়ে দিয়েছিল যে তারা নতুনভাবে ক্রিকেট খেলবে, মনোভাব নিয়ে তারা তাদের ক্রিকেট খেলছে তারা সেই ভাবেই খেলতে শুরু করবে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কিন্তু টেস্ট ম্যাচে এরকমটা হবে সেটা হয়তো কেউ কল্পনা করতে পারেনি।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ব্যাট করতে নেমে টেস্ট ম্যাচে প্রথম দিনে রীতিমতো ইতিহাস গড়ে দেয় ইংল্যান্ডের দল। প্রথম দিনেই ৫০০ রান পার করে দেয় ইংল্যান্ডের দল এবং পাকিস্তানের বোলারদের রীতিমতো দূরমুষ করে ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। প্রথমে ইংল্যান্ডের দুই ওপেনার জ্যাক ক্রলি এবং বেন ডাকেট দুজনে দুরন্ত সেঞ্চুরি করেন এবং ২০০ রানের পার্টনারশিপ দেন ওপেন জুটিতে। এরপর ইংল্যান্ডের তরফ থেকে সেঞ্চুরি করেন অলি পোপ। পরবর্তীকালে হ্যারি ব্রুক ১৫৩ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলেন, রীতিমতো ব্যাটিং ছাড়তেই চাইছিল না ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা।

চারজন ব্যাটসম্যানের প্রথম দিনেই দুরন্ত সেঞ্চুরির পর রীতিমত চালকের আসনে পৌঁছে যায় ইংল্যান্ডের দল। পরবর্তীকালে নিচের সারির ব্যাটসম্যানদের সাথে মিলে বেন স্টোকস আরো কিছু রান সংগ্রহ করেন। বেন স্টোকসের ১৮ বলে ৪১, রবিনসনের ৩৭, এবং জ্যাকস এর ৩০ এর দৌলতে পাকিস্তানের সামনে একটা বিশাল বড় লক্ষ্যমাত্রা দিয়ে দেয় প্রথম ইনিংসের জন্য, প্রথম ইনিংসের ৬৫৭ রান করে ফেলে ইংল্যান্ড, তবে তাদেরকে ডিক্লেয়ার করতে হয়নি কারণ ৬৫৭ রানে তাদের সবকটি উইকেট পাওয়া যায়। কারণ শেষের দিকের ব্যাটসম্যানরা মোটামুটিভাবে ৩০-৪০ রান করে করেন এবং উইকেট দিয়ে আসেন ।

তবে ইংল্যান্ডের এই ৬৫৭ রানের জবাবে রীতিমত সমস্যায় পড়তে হবে পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানদের। এটা অবশ্যই মানা যাবে যে এটা একটা ব্যাটিং পেজ কিন্তু তার সত্বেও একদল ৬৫৭ রান করেছে চার জন সেঞ্চুরিয়ানের দৌলাতে, এখন পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানরা যত ভালোই ব্যাটিং করুক না কেন মোটামুটি ভাবে চারজন পাঁচজনকে সেঞ্চুরির কাছাকাছি করতেই হবে, আর সেখানেই সমস্যা কারণ পাকিস্তানের টেস্ট ব্যাটসম্যানরা সেই ভাবে দুরন্ত ফর্মে নেই।

সুতরাং ইংল্যান্ড পাকিস্তানের এই প্রথম ম্যাচে যে ইংল্যান্ড বেশ কিছুটা এগিয়ে গেল সেটা বলাই যায় কারণ পাকিস্তানকে এই ম্যাচে জিততে হলে মোটামুটি ভাবে ৭০০ রান তো করতেই হবে, আর সেই রান করতে পাকিস্তানের মোটামুটি ভাবে দুদিন এর বেশি লাগবে, কারণ ইংল্যান্ডের মত এত দ্রুত ব্যাটিং পাকিস্তান করতে পারে না।। আর পাকিস্তান যদি এখানে দুই দিন নিয়ে নেয় তাহলে এই ম্যাচটা শেষের দিকে ড্র এর দিকে যেতে পারে কিন্তু ড্র হওয়ার সম্ভাবনা কম, কারণ ইংল্যান্ড যদি সামান্য টুকু সময় পায় তার মধ্যে তারা দুরন্ত গতিতে রান করে একটা বড় টার্গেট দিয়ে দেবে পাকিস্তানকে চতুর্থ ইনিংসের জন্য, তখন পাকিস্তান যদি কোন ভাবে নিজেদের উইকেট ধরে রাখতে পারে তাহলেই একমাত্র ড্র হওয়া সম্ভব তাছাড়া এই ম্যাচ ইংল্যান্ডের হাতের নাগালের মধ্যে রয়েছে।