‘ওদের দলে নেওয়ার প্রশ্নই ওঠে না’ হার্দিকের বি’স্ফোরক মন্তব্যে তোলপাড় ভারতীয় ক্রিকেটে!!

রোহিত শর্মার অনুপস্থিতিতে যখনই ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার সুযোগ পেয়েছেন হার্দিক পান্ডিয়া, ক্যাপ্টেন হিসেবে নিজের আলাদা ছাপ রেখেছেন। প্রথমবার আইপিএলে নেতৃত্ব দিতে নেমে গুজরাট টাইটানসকে চ্যাম্পিয়ন করানোর পর থেকেই হার্দিককে ভারতীয় দলের স্থায়ী টি-২০ ক্যাপ্টেন করার দাবি উঠতে থাকে ভারতীয় ক্রিকেটমহলে। এবার নিউজিল্যান্ড সফরের টি-২০ সিরিজে টিম ইন্ডিয়াকে সাফল্যের সঙ্গে নেতৃত্ব দেওয়ার পরে সেই দাবি আরও জোরালো হয়। কিন্তু অধিনায়কত্ব পাওয়ার সাথে সাথেই হার্দিক পান্ডিয়ার বেশ কিছু মন্তব্য নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

সুনীল গাভাসকর, রবি শাস্ত্রীর মতো প্রাক্তন তারকারা হার্দিককে জাতীয় দলের স্থায়ী টি-২০ ক্যাপ্টেন করার পক্ষে সওয়াল করেন। গাভাসকর-শাস্ত্রীদের মতো প্রাক্তনরা তাঁকে স্থায়ী ক্যাপ্টেন হিসেবে দেখতে চাইছেন, এমন প্রসঙ্গে হার্দিকের প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হয় নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টি-২০ সিরিজের শেষে। পান্ডিয়া কোনও রাখঢাক না করে স্পষ্ট জানালেন যে, কিংবদন্তিদের আস্থাভাজন হতে পারলে ভালো লাগে।পান্ডিয়া এপ্রসঙ্গে বলেন, ‘কেউ যখন বলছেন (স্থায়ী ক্যাপ্টেন করার কথা), ভালো লাগে। তবে সরকারিভাবে যতক্ষণ না ঘোষণা করা হচ্ছে, ততক্ষণ কিছু বলা যায় না।’তবে হার্দিক পান্ডিয়া কে নিয়ে বিতর্ক তখন তৈরি হয় যখন প্রশ্ন ওঠে উমরান মালিক এবং সঞ্জু স্যামসান এর কেন সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না।

পান্ডিয়া আরও বলেন, ‘সত্যি বলতে আমার ভাবনা-চিন্তা একেবারে সহজ। যদি আমি একটা ম্য়াচ বা একটা সিরিজেও নেতৃত্ব দিই, তবে যেভাবে ক্রিকেটটা উপলব্ধি করি, নিজের মতো করে সেভাবেই দল পরিচালনা করব। যখনই সুযোগ পাই না কেন, নিজের ব্র্য়ান্ডের ক্রিকেটার উপহার দেওয়ার চেষ্টা করব।’ হার্দিক এটাও স্পষ্ট করে দেন যে, নেতা হিসেবে ছোট সিরিজে দলে ক্রমাগত রদবদল করার পক্ষপাতী নন তিনি। প্রথম একাদশে অহেতুক কাটছাঁট তাঁর পছন্দ নয়। অর্থাৎ অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়ার সাথে সাথেই হার্দিক পান্ডিয়া স্পষ্ট তে বুঝিয়ে দিলেন যে কারো কথা শুনে চলার পক্ষপাতী তিনি নন তিনি নিজে যেটা সঠিক মনে করবেন সেই পথেই এগোবেন।

অর্থাৎ হার্দিক পান্ডিয়া স্পষ্ট কোথায় জানিয়ে দিলেন যে ইমরান অথবা সঞ্জুদের সুযোগ পাবার সম্ভাবনা এখন বেশ কিছুটা কম। কারণ তার বক্তব্য অনুযায়ী যে একাদশ তাঁর হাতে রয়েছে সেটাতে খুব একটা পরিবর্তন সে করতে চাইছে না।। রোহিতের যুগে সেভাবে কোন সুযোগ পায়নি সঞ্জু শ্যামসন এবং এরপর হার্দিকের যুগেও যদি একই হয় তাহলে সেটা মোটেও মেনে নিতে পারছে না ক্রিকেট ভক্তরা।

পাশাপাশি জানিয়ে রাখবো যে আগামী ২৫ নভেম্বর থেকে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ানডে সিরিজে নামতে চলেছে ভারত যেখানে ভারতের অধিনায়কত্ব করবেন শিখর ধাওয়ান। টি-টোয়েন্টি সিরিজের জয় লাভের পর ভারতীয় দল চাইবে যাতে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ানডে সিরিজেও জয়লাভ করা যায়।