বদলে যাচ্ছে নিয়ম,আইপিএলে এবার ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’ নিয়ম চালু করছে বিসিসিআই!

এবার আইপিএলে ‘সাবস্টিটিউট প্লেয়ার’ নামানোর বিষয়ে ভাবনাচিন্তা করছে ভারতীয় বোর্ড। সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফিতে যেমন ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’-র নিয়ম চালু করা হয়েছিল, সেরকমভাবেই আইপিএলেও ‘ট্যাকটিকাল সাবস্টিটিউট’-র নিয়ম চালু করার বিষয়ে ভাবনাচিন্তা করা হচ্ছে।স্পোর্টসস্টারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার ভার্চুয়ালি বৈঠক করেন আইপিএলের গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্যরা। সেই বৈঠকেই ‘সাবস্টিটিউট প্লেয়ার’ (সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফিতে পোশাকি নাম ছিল ‘ইমপ্য়াক্ট প্লেয়ার’) নামানোর বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। তবে কি এই নিয়ম?

এই নিয়ম নিয়ে ঘরোয়া ক্রিকেটের কোচ এবং খেলোয়াড়রা ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দিয়েছিলেন বলে ওই প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।ইএসপিএন ক্রিকইনফোর প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার আইপিএলের দলগুলিকে পাঠানো বার্তায় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) জানিয়েছে যে আগামী বছরের আইপিএল থেকে সাবস্টিটিউট খেলোয়াড়ের নিয়ম চালু করা হতে পারে। যা ভারতের টি-টোয়েন্টি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে নয়া আঙ্গিক যোগ করবে। প্রতিটি দলের একজন সাবস্টিটিউট খেলোয়াড় ম্যাচে আরও সক্রিয় অংশগ্রহণ করতে পারবেন। সেই সংক্রান্ত নিয়মকানুন শীঘ্রই জারি করা হবে বলে জানিয়েছে বিসিসিআই।

সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফিতে ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’-র নিয়মএমনিতে চলতি বছর সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফিতে ‘ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার’-র নিয়ম চালু করা হয়েছিল। প্রতিটি দল টসের জন্য টিম শিটে চারজন সাবস্টিটিউট খেলোয়াড়ের নাম ঘোষণা করতে পারত। তারপর ম্যাচের সময় একজনকে ‘ইমপ্যাক্ট’ খেলোয়াড় হিসেবে ব্যবহার করা যেত। তবে সেক্ষেত্রে নির্দিষ্ট নিয়ম ছিল। যে কোনও ইনিংস ১৪ তম ওভার শেষ হওয়ার আগে প্রথম একাদশের যে কোনও খেলোয়াড়ের পরিবর্তে ‘ইমপ্যাক্ট খেলোয়াড়কে নামানো যেত। যিনি নিজের পুরো কোটার বোলিং এবং ব্যাটিং করতে পারতেন। অর্থাৎ ফুটবলের পরিবর্তের মতো নিয়ম ছিল।

‘ইমপ্যাক্ট’ খেলোয়াড়ের ক্ষেত্রে প্রচুর সুযোগ-সুবিধা ছিল। কার্যত কোনওরকম বিধিনিষেধ ছিল না। আউট হয়ে যাওয়া কোনও ব্যাটারের পরিবর্তেও ‘ইমপ্যাক্ট’ খেলোয়াড় নামানো যেত। তিনি ব্যাটও করতে পারতেন। তবে সংশ্লিষ্ট দলকে নিশ্চিত করতে হত যে সর্বোচ্চ ১১ জন ব্যাট করবেন। একইভাবে কয়েকটি ওভার বল করার কোনও বোলারকে তুলে নিয়ে ‘ইমপ্যাক্ট’ খেলোয়াড় নামানো যেত। যিনি নিজের চার ওভারের কোটার বল করতে পারতেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, সাবস্টিটিউট প্লেয়ারের নিয়ম চালু করা হলে ট্যাকটিকাল লড়াই আরও জমে উঠবে। নিজের হাতে তুরুপের তাসকে মাঠে নামিয়ে বাজিমাত করার চেষ্টা করবে সব দল। আরও ধারালো হবে মস্তিষ্কের লড়াই। জমে উঠবে খেলা।