বাড়ির এই কোণে লক্ষ্মী মূর্তি রাখলে খুলবে অর্থ যোগ, ভাগ্য বদলাতে সময় নেবে না

মা লক্ষ্মীকে সম্পদের দেবী বলা হয়। মা লক্ষ্মীর আরাধনা করলে মানুষের জীবনে সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি আসে। ভগবান গণেশকে জ্ঞানের দেবতা এবং মাতা লক্ষ্মীকে সম্পদের দেবী বলা হয়। গণেশ ছাড়া দেবী লক্ষ্মীর পুজো অসম্পূর্ণ বলে মনে করা হয়। কারণ জ্ঞান ছাড়া টাকা বেশিদিন আপনার কাছে থাকতে পারে না। আর বাস্তুশাস্ত্র অনুসারে অর্থ সংক্রান্ত বাধার কারণ হল আমরা না জেনে ভগবান গণেশ এবং মা লক্ষ্মীর পুজোয় ভুল করে ফেলি। এমন পরিস্থিতিতে, এই লেখার মাধ্যমে, আমরা আপনাকে জানাব যে কোন দিকে এবং কীভাবে বাড়িতে দেবী লক্ষ্মী এবং গণেশের মূর্তি স্থাপন করবেন।

বাড়িতে রাখা দেব-দেবীর মূর্তিগুলি ঘরে সুখ, সমৃদ্ধি ও শান্তি প্রদান করে। কিন্তু বাস্তু বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন যে মন্দিরে মূর্তিগুলিকে সঠিক দিকে স্থাপন করা হলে বিশেষ উপকার পাওয়া যায়। বাস্তুশাস্ত্র অনুসারে বাড়িতে ভুল দিকে মূর্তি স্থাপন করা হলে ঘরে নেতিবাচক শক্তির সঞ্চার হয়। আসুন জেনে নেওয়া যাক বাড়ির কোন দিকে লক্ষ্মী ও গণেশের মূর্তি রাখা ভালো।

  • গণেশ মূর্তির জন্য সেরা দিক: হিন্দু ধর্মে গণেশ পুজো দিয়ে যেকোনো শুভ ও মাঙ্গলিক কাজ শুরু হয়। এমন পরিস্থিতিতে গণেশ মূর্তি সঠিক দিকে রাখলে ঘরে সুখ-সমৃদ্ধি আসে। বাস্তুশাস্ত্র অনুসারে, বাড়ির উত্তর দিকে গণেশ মূর্তি স্থাপন করা শুভ বলে মনে করা হয়। সেই সঙ্গে গণেশের সিঁদুর রঙের ছবি লাগানো ভালো বলে মনে করা হয়।

ঠাকুর ঘরে গণেশের সঙ্গে দেবী লক্ষ্মীর ছবি স্থাপন করা হয়ে থাকে। কিন্তু তাদের সঠিক দিকে রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বাড়ির মন্দিরে রাখা মা লক্ষ্মীর মূর্তি গণেশের ডানদিকে রাখতে হবে। কিছু পুরাণ মতে মা লক্ষ্মী গণেশের মা, তাই তিনি ডানদিকে প্রতিষ্ঠিত।গণেশের সঙ্গে ঘরে মা লক্ষ্মীর মূর্তি রাখলে সুখ-সমৃদ্ধি আসে এবং অর্থের অভাব হয় না। পৌরাণিক গ্রন্থ অনুসারে, দেবী লক্ষ্মী এবং গণেশের মূর্তি উত্তর দিকে রাখতে হবে, এর পিছনে একটি পৌরাণিক কাহিনী রয়েছে। ভগবান শিব বহুদিন ধরে ক্রোধে গণেশকে হত্যা করেছিলেন, এর পরে শিব উত্তর দিকে তাঁর দূত পাঠালেন এবং বললেন যে এই পথে যে আগে আসবে, তার ধড় নিয়ে এসো। সেই সময় ভগবান শিবের দূতরা ঐরাবতের মুখ নিয়ে এসেছিলেন। তাই ভগবান গণেশ ও মা লক্ষ্মীর মূর্তি উত্তর দিকে রাখতে হবে।

কেন মা লক্ষ্মীর মূর্তির সঙ্গে গণেশের মূর্তি রাখা হয়?পৌরাণিক গ্রন্থে, ভগবান গণেশকে জ্ঞানের দেবতা বলা হয়, যিনি তাঁর ভক্তদের সমস্ত ইচ্ছা পূরণ করেন এবং তাদের রোগ থেকে রক্ষা করেন এবং দেবী লক্ষ্মীকে সম্পদ ও ঐশ্বর্যের দেবী বলা হয়। জ্ঞান ছাড়া মানুষের সম্পদের কোনো উৎস নেই। যদি একজন ব্যক্তির জ্ঞান না থাকে, তবে সে তার খারাপ অভ্যাসের কারণে অর্থের অপব্যবহার করবে এবং মা লক্ষ্মী তার পাশে দাঁড়ান না। তাই মা লক্ষ্মীর সঙ্গে গণেশের মূর্তি রাখুন। ভগবান গণেশকে দেবী লক্ষ্মীর মানসপুত্র বলা হয়।এই অবস্থায় মা লক্ষ্মীর মূর্তি রাখবেন নাসনাতন হিন্দুধর্মে প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই লক্ষ্মীর মূর্তি রাখা হয়। কারণ শাস্ত্র অনুসারে প্রতিদিন লক্ষ্মী দেবীর আরাধনা করলে অর্থ সংক্রান্ত সমস্যা দূর হয়। তবে জেনে নেওয়া যাক ঘরে এই ভাবে রাখা মা লক্ষ্মীর মূর্তি আপনার ক্ষতি করতে পারে। হ্যাঁ, মন্দিরে দেবী লক্ষ্মী ও গণেশের মূর্তি থাকতে হবে। কিন্তু অনেক সময় মানুষ অজান্তেই লক্ষ্মী দেবীর দাঁড়িয়ে থাকা মূর্তি রাখেন, এই পুজো ফলদায়ক বলে গণ্য হয় না।

ধর্মীয় গ্রন্থ অনুসারে, দেবী লক্ষ্মী চঞ্চল, তাই তাঁর মূর্তি বা প্রতিমাকে কখনই দাঁড়ানো অবস্থায় রাখা উচিত নয়। দণ্ডায়মান মূর্তি স্থাপন করলে মা বেশিক্ষণ ওই স্থানে থাকেন না। তাই কমলাসনে বসে থাকা মাতার মূর্তি স্থাপন করুন।এই ভুল করবেন নাঅনেকে অজান্তে গণেশের মূর্তির বাম দিকে লক্ষ্মীর মূর্তি স্থাপন করেন। এতে বাড়ির আর্থিক অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। কারণ স্ত্রী পুরুষের বাম দিকে বসে। যেখানে মা লক্ষ্মী হলেন বিঘ্নহর্তা ভগবান গণেশের মা। তাই সর্বদা মা লক্ষ্মীর মূর্তি গণেশের ডান দিকে রাখুন। এর সঙ্গেই মা লক্ষ্মী এবং ভগবান গণেশের আশীর্বাদ সর্বদা আপনার উপর থাকে।

শিবলিঙ্গের দিককেউ কেউ বাড়িতে ছোট শিবলিঙ্গও রাখেন এবং পুজো করেন। এমন পরিস্থিতিতে শিবলিঙ্গের সঠিক দিক জানাটাও খুব জরুরি। বাড়ির মন্দিরে রাখা শিবলিঙ্গের মুখ উত্তর দিকে রাখতে হবে। এতে ঘরে পজিটিভ এনার্জি আসে।