এখনও ফুরিয়ে যাননি! মাত্র ১৯ বলে হাফ সেঞ্চুরি করে নজির গড়লেন প্রাক্তন KKR ক্যাপ্টেন!

আবু ধাবি টি-১০ লিগে রানের ঝড় বইছে। চার-ছক্কার ফুলঝুরি ফুটছে প্রতি ম্যাচেই। যদিও সমর্থকদের পয়সা উসুল মনোরঞ্জনে বোলারদের ভূমিকা নিতান্তই সামান্য। বরং একতরফা রাজত্ব চলছে ব্যাটসম্যানদের।বুধবার নর্দার্ন ওয়ারিয়র্স বনাম নিউ উয়র্ক স্ট্রাইকার্সের হাই-স্কোরিং ম্যাচ যে রকম রোমাঞ্চকর রূপ নেয়, তাতে ক্রিকেটপ্রেমীদের গায়ে কাঁটা দিতে বাধ্য। এক্ষেত্রে রোভম্যান পাওয়েলের অসামান্য লড়াই ব্যর্থ করেন প্রাক্তন নাইট অধিনায়ক ইয়ন মর্গ্যান।

ওয়ারিয়র্সের বড় রানের ইনিংস টপকে শেষ বলে জয় তুলে নেয় স্ট্রাইকার্স।শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে টস জিতে শুরুতে ব্যাট করতে নামে নর্দার্ন ওয়ারিয়র্স। তারা নির্ধারিত ১০ ওভারে ৩ উইকেটের বিনিময়ে ১৪৩ রানের বড়সড় ইনিংস গড়ে তোলে। ২টি চার ও ৬টি ছক্কায় মাত্র ১৮ বলে ব্যক্তিগত হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন পাওয়েল। তিনি শেষমেশ ১৯ বলে ৫৪ রান করে আউট হন। এছাড়া উসমান খান ২৫ বলে ৪৮ রান করেন।

অ্যাডাম লিথ ও শেরফান রাদারফোর্ডের অবদান যথাক্রমে ১৪ ও ১৬ রান।নিউ ইয়র্কের হয়ে আকিল হোসেন, জর্ডন থম্পসন ও কায়রন পোলার্ড ১টি করে উইকেট নেন। বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট রজার বিনির ছেলে স্টুয়ার্ট বিনি উইকেট না পেলেও ২ ওভারে মাত্র ১৭ রান খরচ করেন।

জবাবে ব্যাট করতে নামা নিউ ইয়র্ক স্ট্রাইকার্সকে একেবারে শেষ বলে চার মেরে ম্যাচ জেতান ইয়ন মর্গ্যান। তিনি ১২টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে ৩৫ বলে ৮৭ রান করে অপরাজিত থাকেন। মর্গ্যান ৬টি চার ও ৩টি ছক্কায় ১৯ বলে ব্যক্তিগত অর্ধশতরান পূর্ণ করেন।ব্যাট হাতে খাতা খুলতে পারেননি পোলার্ড ও ফ্লেচার। পল স্টার্লিং ১২, আজম খান ১৬ ও মহম্মদ ওয়াসিম ১৮ রানের যোগদান রাখেন।

৫ উইকেটে ১৪৪ রান তুলে ম্যাচ জেতে নিউ ইয়র্ক। ওয়ারিয়র্সের হয়ে মহম্মদ ইরফান ২১ রানে ৩টি উইকেট দখল করেন। ১টি করে উইকেট নেন জুনাইদ সিদ্দিকি ও ওয়েন পার্নেল। অভিমন্যু মিঠুন ২ ওভারে ২৫ রান খরচ করেও কোনও উইকেট পাননি।