সচিনের সবথেকে বড় ঐতিহাসিক রেকর্ড ভেঙে অনবদ্য নজির গড়লেন বিরাট কোহলি!

শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ওডিআই সিরিজে স্বপ্নের ফর্মে বিরাট কোহলি (Virat Kohli)। প্রথম ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানোর পরে রবিবারেও দুরন্ত সেঞ্চুরি এল তাঁর ব্যাট থেকে। একইসঙ্গে দুই নজিরের মালিক হলেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক। একদিনের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রান সংগ্রহাকের তালিকায় প্রথম পাঁচে উঠে এলেন কিং কোহলি। শ্রীলঙ্কান কিংবদন্তি মাহেলা জয়বর্ধনেকে সরিয়ে দ্বিতীয় ভারতীয় হিসাবে এই তালিকায় জায়গা করে নিলেন তিনি। সেই সঙ্গে শচীন তেন্ডুলকরের নজির ভাঙলেন। ঘরের মাঠে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরির রেকর্ড এখন বিরাটের দখলে। এদিনের ম্যাচে সেঞ্চুরি করলেন শুভমন গিলও।

সিরিজের শেষ ম্যাচে বড় রানের দিকে এগোচ্ছে ভারত।আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে ২৬৮টি ম্যাচ খেলেছেন বিরাট। ইতিমধ্যেই একাধিক নজির গড়েছেন কিং কোহলি। একদিনের ক্রিকেটে শতরান করার তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন তিনি। রবিবারের ম্যাচে নতুন নজির গড়লেন। মোট ১১০ বলে ১৬৬ রানের ইনিংস তিনি খেলেন যার মধ্যে ১৩ টি চার এবং আটটি বিশাল ছক্কা ছিল। ভারতীয় ইনিংসের ৩৫ তম ওভারের প্রথম বলেই চার মারলেন কিং কোহলি। চামিকা করুণারত্নের ওই বলেই নতুন কীর্তি গড়লেন বিরাট। মাহেলা জয়বর্ধনের রেকর্ড ভাঙলেন তিনি। ১২৬৫৩ রান করে ওডিআই ক্রিকেটের পঞ্চম সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হলেন।

পরপর দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন বিরাট। দিন কয়েক আগেই বাংলাদেশের (Bangladesh) বিরুদ্ধে ৩ বছরের খরা কাটিয়ে ওয়ানডে সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন কোহলি। পরের ম্যাচেই ফের সেঞ্চুরি পান তিনি। এটি ছিল বিরাটের ওয়ানডে কেরিয়ারের ৪৫তম এবং আন্তর্জাতিক কেরিয়ারের ৭৩তম শতরান। অনবদ্য এই সেঞ্চুরি করে শচীন তেণ্ডুলকরের (Sachin Tendulkar) সর্বকালের রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলেন কিং কোহলি। ওয়ানডেতে ঘরের মাঠে এটি ছিল বিরাটের কুড়িতম শতরান। ঘরের মাঠে শচীনের সেঞ্চুরির সংখ্যাও কুড়িই।মাস্টার ব্লাস্টারের নজির ছোঁয়ার কয়েকদিনের মধ্যেই সেই রেকর্ড ভেঙে ফেললেন বিরাট।

ঘরের মাঠে ২১টি সেঞ্চুরির মালিক হলেন তিনি। কেরলের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ইনিংসের শুরু থেকেই আগ্রাসী মেজাজে খেলতে শুরু করেছিলেন বিরাট। শেষ পর্যন্ত সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে থামলেন তিনি। জোড়া নজির গড়ে মাঠ ছাড়লেন। আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে ৭৪ তম সতরণতবে বিরাটের ব্যাটিংয়ের সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়লেন শ্রীলঙ্কার দুই ক্রিকেটার।

বিরাটের একটি চার আটকাতে গিয়ে ধাক্কা খান বান্দারা ও ভান্দারশ। মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যেতে হয় দুই ক্রিকেটারকে। বিপক্ষ অধিনায়ক দাসুন শানকার কাছে গিয়ে দুই আহত ক্রিকেটারের বিষয়ে খোঁজ নেন বিরাটও।