স্বাধীনতার আগে শুরু হওয়া এই ৫টি কোম্পানি যারা লাভের একটা বড়ো অংশ দান করে দেন!

সাধারণ মানুষের অনেক সময় বিভিন্ন কোম্পানির টানো বাড়ে হাজার হাজার কোটি টাকার কথা শুনে বেশ অবাক লাগে যে একজন ব্যক্তি বা একটা কোম্পানি এত কি করে লাভ করতে পারে কিন্তু আসল ব্যাপার হলো এই অধিকাংশই কোম্পানি স্বাধীনতার আগে থেকে কাজ করছে এবং একটা লম্বা সময় ধরে মার্কেট পুরোপুরি ভাবে ধরে ফেলেছে আর সেই কারণেই তারা এতটা লাভ করে উঠতে পারে।

১) বিসলেরি: আজকে জলের জন্য বিসলেরি সারা ভারত জুড়ে একটা বিশাল নাম। তাদের জল কতটা শুদ্ধ হয় সেটা আজকে বাচ্চা বাচ্চাও জানে। কিন্তু 1921 সালে শুরু হয় এই কোম্পানিটি। সেই সময় এক বোতল জলের দাম ছিল 1 টাকা এবং সেই সময় অনুযায়ী এটা একটা অনেক বড় টাকা সেইজন্য তখন শুধুমাত্র ধনী ব্যক্তি রায় এটি কিনতেন এবং বড় বড় ফাইভ স্টার হোটেলেও এই জল ব্যবহার করা হতো। কিন্তু সেখান থেকে আজকে মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে এই বিসলেরি।

২) ফেভিকল: ঘরে যে কোন জিনিস ভেঙে অথবা ফেটে গেলে আজকালকার দিনে ফেভিকল একটা বিশাল গুরুত্বপূর্ণ জিনিস প্রায় ঘরে ঘরেই দেখতে পাওয়া যায় অথচ এতটাই এটা আমাদের সমাজের সাথে এবং আমাদের জীবনের সাথে মিলেমিশে গেছে।

৩) ডাবর (Dabur) : ডাবর আজ প্রত্যেক ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে কিন্তু এর শুরুটা হয়েছিল ১৮৮৪ সালে কলকাতার এক ব্যক্তি যার নাম ছিল এসকে বর্মন তার হাত দিয়ে। একটা সময় তিনি নিজের হাতে বিভিন্ন রকমের জরিবুটি দিয়ে প্রোডাক্ট তৈরি করতেন এবং ধীরে ধীরে তিনি সেটিকে একটি কোম্পানিতে পরিণত করেন এবং আজকে মাত্র ১২ বছরের মধ্যেই তিনি এসে কোম্পানিকে সারা ভারত জুড়ে ছড়িয়ে দেন এবং আজকে একটি বিশাল বড় কোম্পানি। আজকে ডাবরের মূল্য প্রায় 11.8 বিলিয়ন ডলার।

৪) মাহিন্দ্রা : মাহিন্দ্রা এবং মাহিন্দ্রা কোম্পানির শুরু হয় ১৯৪৫ সালে কিন্তু সেই সময় এর নাম ছিল মাহিন্দ্রা এবং মোহাম্মদ কারণ এই কোম্পানি শুরু করেছিলেন জগদীশচন্দ্র মাহিন্দ্রা এবং কৈলাসচন্দ্র মাহিন্দ্রা এবং মল্লিক গোলাম মোহাম্মদ। কিন্তু স্বাধীনতার পর মল্লিক গোলাম মোঃ পাকিস্তানের চলে যান এবং সেখানে অর্থমন্ত্রী হন এবং পরবর্তীকালে তিনি সেখানে গভর্নর জেনারেল হয়েছেন ।আজকের দিনে এই কোম্পানির মূল্য প্রায় ২২ বিলিয়ন ডলার এবং সারা বিশ্বের প্রায় ১০০ টি দেশে তাদের ব্যবসা চলছে।

৫) ওবেরয় হোটেল: মোহন সিং ওবেরয় মাত্র ছয় বছর বয়স ছিল যখন তার পিতার মৃত্যু হয় এবং তার পর থেকে তার মা তাকে অনেক কষ্ট করে বড় করে তোলেন এবং নিজের পড়াশোনা সম্পন্ন করার পরে তিনি চাকরি খোঁজার চেষ্টা করেন এবং সিমলাতে মাত্র ৪০ টাকার মাইনেতে একটি চাকরি পান কিন্তু পরবর্তীকালে তিনি একটি হোটেল কিনে ফেলেন এবং পরবর্তীকালে তার পরিশ্রম দ্বারা সেই হোটেলকে একটা বড় ফ্রাঞ্চাইজিতে পরিণত করেন এবং আজকের দিনে তিনি একজন সফল ব্যক্তি।