সূর্যের তাণ্ডব,মাত্র ৪৫ বলে সেঞ্চুরি!শ্রীলঙ্কাকে দুরমুশ করে অনবদ্য রেকর্ড গড়লেন সুর্যকুমার!

ব্যাট হাতে বেশ ভালো রকম ফর্মে রয়েছেন সূর্য কুমার যাদব সেটা বোঝাই যাচ্ছিল, কারণ ঘরোয়া ক্রিকেটে কয়েকদিন আগেই তিনি দুরন্ত পারফরমেন্স করেছেন। তবে শ্রীলঙ্কা সিরিজে এখনো পর্যন্ত একটা বড় ইনিংস আসা বাকি ছিল। এখনো পর্যন্ত দু একটা শট খেললেও বেশিক্ষণ তিনি দাঁড়িয়ে থাকতে পারছিলেন না এবং খুব তাড়াতাড়ি আউট হয়ে যাচ্ছিলেন তিনি। তবে সিরিজের শেষ ম্যাচে যেখানে সিরিজ জিততে হলে ভারতকে এই ম্যাচে জয়লাভ করতেই হতো সেখানে জ্বল জ্বল করে জ্বলে উঠলেন সূর্য। সূর্যের ব্যাটিং তাণ্ডবে রীতিমত ছারখার হলো শ্রীলংকার বোলিং।

শ্রীলংকার বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে জীবনের তৃতীয় শত রান সম্পূর্ণ করলেন রীতিমতো নিজের স্টাইলে। মাত্র ৪৫ বলে অনবদ্য সেঞ্চুরি করে সূর্য কুমার যাদব রেকর্ড বুকে নিজের নাম তুলে নিয়েছেন। ভারতীয় হিসেবে সবথেকে দ্রুততম সেঞ্চুরি করার রেকর্ড ছিল রোহিত শর্মার কাছে মাত্র 35 বলে তিনি সেই সেঞ্চুরি করেছিলেন এবং তারপরে দ্বিতীয় দ্রুততম সেঞ্চুরি ছিল কে এল রাহুলের যিনি 46 বলে সেঞ্চুরি করেছিলেন, তবে কে এল রাহুলের সেই রেকর্ড ভেঙে দিলেন সূর্য কুমার যাদব।

মাত্র ৪৫ বলে তিনি এই দুরন্ত সেঞ্চুরি করলেন শ্রীলংকার বিরুদ্ধে এবং ভারতীয় ক্রিকেটার হিসেবে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে দ্বিতীয় দ্রুততম সেঞ্চুরিটি নিজের নামে করলেন। তার মোট রান 51 বলে ১১২, তার এই দুরন্ত ইনিংসে ছিল ,৭ টি চার এবং ৯ টি বিশাল ছক্কা। সূর্য কুমার যাদব কে বল করা কতটা কঠিন হতে পারে সেটা আজকে হাড়ে হাড়ে বুঝতে পেরেছে শ্রীলংকার বোলাররা। টসে জিতে আজকে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক হার্দিক পান্ডিয়া।

প্রথমেই ভারত বেশ কিছুটা ব্যাকফুটে চলে যায় ঈশান কিষান আউট হয়ে যেতেই। তবে তারপর শুভমান গিল একটা পার্টনারশিপ করা শুরু করেন, তবে সূর্য মাঠে আসতেই শুভমান গিলের উপর থেকেও চাপ সরে যায় কারণ তিনি একা ভারতীয় দলকে এই ম্যাচে টেনে নিয়ে আসেন সম্মানকে শুধুমাত্র তার সাথে দাঁড়িয়ে ছিলেন যিনি ৩৬ বলেছে ৪০ রান করেছেন তবে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস রয়েছে এখানে সেটা হল রাহুল ত্রিপাঠীর যিনি ১৬ হল বলে ৩৫ রান করেছেন।

শেষের দিকে অক্ষর প্যাটেল এসে মাত্র ৯ বলে ২১ রান করেন। ৫ উইকেট হারিয়ে ভারতীয় দল কুড়ি ওভারে ২২৮ রান তুলেছে এবং এই ম্যাচে জয়লাভ করতে হলে শ্রীলংকার দরকার ২২৯ রান এবং সেখান পর্যন্ত যে রীতিমতো অসম্ভব হতে চলেছে সেই ব্যাপারটা ইতিমধ্যেই পরিষ্কার।