রান্নাঘরে চা করছিলেন মহিলা,পিছনে অদ্ভুত শব্দ! ঘাড় ঘোরাতেই শরীরে বয়ে গেল হিমস্রোত

রবিবার। তাও আবার বিকেলবেলা। চা পানের আসর জমে উঠেছিল। রান্নাঘরের ভিতরেই ছিলেন মহিলা। তৈরি হচ্ছিল পরিবারের জন্য চা। তখনই ফোঁস-ফোঁস শব্দ। প্রথমটা ঠাউর করতে পারেননি গৃহবধূ। তবে পরে হল বিপত্তি।

পিছন ঘুরে তাকাতেই শিউরে উঠলেন তিনি!জলপাইগুড়ি রাজগঞ্জ ব্লকের ফুলবাড়ি এলাকার শোভা ভিটা গ্রামের ঘটনা। সেখানে বর্ণব রায় বাড়ির সকলের জন্য বিকেল চা বানাচ্ছিল বাড়ির গৃহবধূ। আচমকাই তিনি লক্ষ্য করেন তাঁর রান্নাঘরে ঢুকে জিভ নাড়িয়ে ফোঁসফোঁসের একটি শব্দ শোনা যাচ্ছে। পিছন ঘুরে তিনি যা দেখলেন তাতে করে হিম স্রোত বয়ে গেলো শরীর দিয়ে।

পিছন ঘুরে তাকাতেই দেখলেন রান্নাঘরের ভিতরে হেলেদুলে ঢুকেছে গো-সাপ। সেই দৃশ্য দেখে মূর্ছা যাওয়ার জোগাড় হল তাঁর। এরপর কোনও রকমে রান্নাঘরের অন্য একটি দরজা দিয়ে চিৎকার করতে-করতে পালিয়ে গেলেন তিনি।এদিকে, এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই গ্রামের মানুষ ভিড় জমায় বর্ণব রায়ের বাড়িতে। এরপর তাঁরাই খবর দেন বৈকণ্ঠপুর বন বিভাগের ডাবগ্রাম রেঞ্জে। খবর পেয়ে বনকর্মীরা দ্রুত আসেন ওই বাড়িতে। এরপর তাঁরা গো সাপটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যান।বনকর্মী অরিত রায় বলেন, ‘এটি একটি মনিটর লিজার্ড। বাংলায় একে গো-সাপ বলা হয়। আগে এই জঙ্গল ও স্থানীয় এলাকায় প্রচুর দেখা যেত। এখন অনেক কম দেখা যায়। এটি একটি নির্বিষ প্রাণী। কোনওভাবে এখানে এসেছে। আমরা ধরে নিয়ে গেলাম। রেঞ্জ অফিসে জমা দেব। এরপর এর শারীরিক পরীক্ষার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে।’ নিচে রইলো তার ছবি।

বস্তুত, জেলা থেকে প্রায়শই সাপ উদ্ধারের খবর প্রকাশ্যে আসে। কয়েকদিন আগে স্কুটির ভিতর থেকে উদ্ধার হল বিরল প্রজাতির বিষাক্ত সাপ গ্রিন পিট ভাইপার। চাঞ্চল্য ছড়ায় মালবাজার ওদলাবাড়ি এলাকায়। ওই দিন ওদলাবাড়ি একটি গ্যারেজে এই স্কুটি ঠিক করতে আসেন পাহাড়ের এক বাসিন্দা। স্কুটির কিছু একটা সমস্যা দেখা দিয়েছিল, গ্যারেজ কর্মীরা স্কুটির সামনের লাইটের বক্স খুলতেই চমকে ওঠেন। স্কুটির মধ্যে থাকা লাইট বক্সের ভেতরে পেঁচিয়ে ছিল সাপটি।

ঘটনায় ভীষণ চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকাজুড়ে এদিকে, এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই গ্রামের মানুষ ভিড় জমায় বর্ণব রায়ের বাড়িতে। এরপর তাঁরাই খবর দেন বৈকণ্ঠপুর বন বিভাগের ডাবগ্রাম রেঞ্জে। খবর পেয়ে বনকর্মীরা দ্রুত আসেন ওই বাড়িতে। এরপর তাঁরা গো সাপটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যান।

জানিয়ে রাখি বাড়ির আশেপাশে এই ধরনের কিছু উদ্ধার হওয়া খুব একটা অস্বাভাবিক কিছু নয়, তবে অনেক ক্ষেত্রেই মানুষ এদের ওপর আঘাত করেন এবং তাদের মেরে ফেলেন যা একদমই উচিত নয়, যেকোনো প্রাণীর বাঁচার অধিকার আছে, তাই এরকম কিছু দেখলে বনোদপ্তরকে খবর দিন।