উপার্জনের কেউ নেই,ভাই বোনদের খাবার যোগাতে পুরুষবেশে রিক্সা চালাচ্ছে তরুণী

ড্রাইভারকে জিজ্ঞেস করা হলো, রুপনগর আবাসিকের নয় নাম্বার রোডে যাবে কিনা, গেলে ভাড়া কত? উল্লেখ্য এই ড্রাইভারে বললো “আপনার ‘যা খুশি দিয়েন” তখনও বোঝা যায় নি যে পুরু’ষের বেশে তিনি একজন ম’হিলা ড্রাইভার। পথে তাকে জিজ্ঞেস করা হল “তুমি ‘যে বড় রাস্তায় ইঞ্জিন রিক্সা চালাচ্ছো, পু’লি;শে ধরবে নাতো” উত্তরে সে যেটা বললো সেটা আর বলতে পারলাম না।

শুধু জিজ্ঞেস করলাম, এত সাহস পাও কোত্থেকে? তোমার বাবা কি দা;রো’গা আছিল? হেঁসে দিয়ে বললো, আমার বাবা নয়, আমার দাদা দা;রো’গা আছিল।তার রেখে যাওয়া জায়গা জমি সবটাই চাচারা গ্রা;স করেছে।

বা’ধ্য হয়ে গ্রাম ছেড়ে ঢাকায় এসেছি। তবে বেঁ;চে থাকলে ঠিক একদিন আমাদের প্রাপ্যটা বুঝে নেব, নেবই।তার মধ্য যে আত্মবিশ্বাসও মনের দৃঢ়তা খুঁজে পেয়েছি ‘তা অবিশ্বাস্য।

কোন বাঙালি মে’য়ের এত সাহস ও দৃঢ়তা এর আগে খুব একটা চোখে পরেনি।তার স্বা’মী তাকে ছেড়ে চলে যাওয়ার পরে ছোট ছোট দু’টি ভাইবোন নিয়ে তার সংসার। জিজ্ঞেস করলাম সারাদিন রিক্সা চা’লিয়ে কখন

রাঁ;ধবে আর কখনই বা খাবে? সে বললো গরীব মানুষের আবার খাওয়া, ওরা ‘যা রেঁ;ধে রাখবে তাই দিয়েই খেয়ে নিব। তথ্যসূত্র: ঢাকা নিউজ