বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে সুযোগ পেতেই কুম্বলের রেকর্ড ভেঙে অনবদ্য বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন শামি !

বিশ্বকাপের এখনো পর্যন্ত হওয়া সব ম্যাচ গুলির মধ্যে সবথেকে বড় ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ভারত এবং নিউজিল্যান্ড তার কারণ আজকের ম্যাচে মুখোমুখি হওয়া এই দুটি দল এখনো পর্যন্ত কোনো দলের বিরুদ্ধে পরাজিত হয়নি। সামনের যে দলে থাকুক না কেন এই দুটি দল লাগাতার জিতে আসছে তাই একটা দুর্দান্ত ম্যাচের অপেক্ষা করছিল ক্রিকেট ভক্তরা। ভারতীয় দল প্রথমে বোলিং করে ভালো রকম একটা পরিস্থিতি তৈরি, প্রথম থেকেই উইকেট নিয়ে চাপ তৈরি করে নিউজিল্যান্ডের উপর যদিও খারাপ ফিল্ডিং বিশেষত ক্যাচ মিসের দৌলতে নিউজিল্যান্ড একটা সম্মানজনক রান পর্যন্ত পৌঁছে যায়। তবে আজকের ম্যাচে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমে ছিলেন ভারতীয় পেস বোলার মোহাম্মদ সামি।

বিশ্বকাপের প্রথম চারটি ম্যাচে বসিয়ে রাখা হয়েছিল তাঁকে। তার খারাপ বোলিং এর কারণে যে তাকে বসিয়ে রাখা হয়েছিল এরকম কোন ব্যাপার নেই, তাকে বসিয়ে রাখার কারণ ছিল ভারতীয় দল যে কম্বিনেশনে খেলছিল সেখানে তার জায়গা থাকছিল না। এবং তার থেকে একটু ভালো ব্যাট করা সারদুলকে সেই জায়গা দেওয়া হচ্ছিল। তবে আজকে ভারতীয় দল তাদের কম্বিনেশন পাল্টাতে বাধ্য হয় কারণ হার্দিক জোটের জন্য টিমের বাইরে চলে গেছে এবং সেই কারণে অন্য একজন ব্যাটসম্যানকে খেলাতে হয়েছে এবং সারদুলের বদলে একজন এমন বোলারকে খেলাতে হয়েছে যে ১০ ওভার বল করতে পারবে আর সেরকমই একজন বোলার মোঃ শামি। নিউ জ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে পঞ্চম ম্যাচে ফিরে প্রথম বলেই উইকেট পেলেন মহম্মদ শামি।

```

আউট করেন উইল ইয়ংকে। সেই উইকেটের সৌজন্যে বিশ্বকাপে ভারতের হয়ে সবচেয়ে বেশি উইকেট নেওয়ার তালিকায় এখন দ্বিতীয় স্থানে শামি।ভারতের হয়ে এত দিন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট ছিল অনিল কুম্বলের (৩১)। রবিবার ইয়ংয়ের উইকেট নেওয়ার পর ভারতের প্রাক্তন বোলার তথা কোচকে টপকে গেলেন শামি। ১২টি ম্যাচে এখন তাঁর ৩৩টি উইকেট। এক নম্বরে যুগ্ম ভাবে রয়েছেন দুই পেসার জাহির খান এবং জাভাগল শ্রীনাথ। দু’জনেরই ৪৪টি করে উইকেট রয়েছে।

আগের দু’টি বিশ্বকাপে ভাল বল করা সত্ত্বেও দেশের মাটিতে সুযোগ দেওয়া হচ্ছিল না শামিকে। কিন্তু ধর্মশালায় পেস সহায়ক উইকেট হওয়ায় যশপ্রীত বুমরা এবং মহম্মদ সিরাজের পাশাপাশি শামিকেও নেওয়া হয়েছে। প্রথম বলে উইকেট নিয়ে নিজের প্রতিভার প্রমাণ দিয়েছেন শামি। পরের দিকে একটি জুটিও ভেঙে দেন। দীর্ঘ জুটি তৈরি হয়েছিল রাচিন রবীন্দ্র এবং ড্যারিল মিচেলের মধ্যে। রাচিনকে আউট করে দেন শামি।

```

যদিও পরবর্তীকালে ডারেল মিছিল নিচের দিকের ব্যাটসম্যানদের সঙ্গে নিয়ে ২৭৩ রান পর্যন্ত পৌঁছে যায় তবে এক্ষেত্রে ভারতীয় দল যে পরের দিকে ভালো বোলিং করে ম্যাচে আরেকটু চাপ সৃষ্টি করেছে নিউজিল্যান্ডের উপর এটা বলা যায় কারণ একটা সময় মনে হচ্ছিল নিউজিল্যান্ড ২৮০ থেকে ৩০০ পর্যন্ত যেতে পারে।

নিউজিল্যান্ডের এই রান এই পিচের উপর যথেষ্ট সম্মানজনক একটা রান ছিল, কিন্তু প্রথম থেকেই দুর্দান্ত ব্যাটিং শুরু করে ভারতীয় দলের দুই ওপেনের রোহিত শর্মা এবং শুভমান গিল এবং নিউজিল্যান্ড দলের পেস বোলারদের দাপট রীতিমত নাকাম করে দেয়।