“এটা পরিষ্কার,বিশ্বকাপে ভারতীয় দল …” টিম ইন্ডিয়াকে নিয়ে চরম মন্তব্য করে দিলেন ক্রিস গেইল!

আরও একবার বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে টিম ইন্ডিয়ার বিশ্রি হারের পর রীতিমতো মুষড়ে পড়েছেন ভারতীয় ক্রিকেট প্রেমীরা। কারণ আইসিসি ট্রফি জয়ের খরা ভারতের আরও দীর্ঘায়িত হয়ে গিয়েছে। ১০ বছর আগে মেন ইন ব্লু শেষ বার আইসিসি ট্রফি জিতেছিল। মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে ২০১৩ সালের আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। এর পর থেকে আইসিসি-র শিরোপা জয়ের কাছাকাছি পৌঁছেও, ভারতকে ফিরে আসতে হয়েছে ব্যর্থ মনোরথে।তবে এবারের ওডিআই বিশ্বকাপকে ঘিরে ভারতকে নিয়ে স্বপ্ন দেখছে ক্রিকেট মহল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রাক্তন ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইলও ভারতকে নিয়ে বড়ো মন্তব্য করলেন।

৮ অক্টোবর অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ভারত তাদের বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে।টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে ‘ইউনিভার্স বস’ গেইল একটি সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে আসন্ন বিশ্বকাপ, বিরাটের সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্ব, ভারত বনাম পাকিস্তান ম্যাচ এবং আরও অনেক কিছু নিয়ে আলোচনা করেছেন।

```
  • গেইল যা বলেছেন-২০২৩ বিশ্বকাপে ফেভারিট:গেইল: কে ফেভারিট জানি না, তবে আমি শীর্ষ চারটি দল সম্পর্কে বলতে পারি। আমি ভারত, পাকিস্তান, ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়াকে চতুর্থ দল হিসেবে মনে করি। আমি নিউজিল্যান্ডের নামও বলতে পারতাম। কিন্তু আমি অস্ট্রেলিয়াকেই রাখব।

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিয়ে প্রশ্ন:গেইল: বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে না দেখতে পারলে মনটা খারাপ হবে। এটা ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং সমর্থকদের জন্যও দুঃখজনক হবে। ওরা বিশ্বকাপে না উঠলে হতাশাজনক হবে। আশা করব, কিছু অলৌকিক ঘটনা ঘটবে। তবে এটা খুব কঠিন বিষয়।

কোহলির জন্য ভারত বিশ্বকাপ জিতবে:গেইল: বিরাট কোহলির হাতে এখনও আরও একটি বিশ্বকাপ আছে। আমার মনে হয় না, এটাই ওর শেষ বিশ্বকাপ হতে যাচ্ছে। আমার মনে হয়, ও আর একটি বিশ্বকাপ খেলবে। ভারত ফেভারিট, তারা ঘরের মাঠেও খেলবে। সুতরাং, এটা খুব আকর্ষণীয় হতে যাচ্ছে। আমরা দেখতে চাই, ভারত কী রকম দল নির্বাচন করতে চলেছে। আসলে অনেক ক্রিকেটার দরজায় কড়া নাড়ছে। ঘরের মাঠে ভারত সব সময়ে ফেভারিট। তবে এটা কিন্তু ভারতীয় দলের উপরও চাপ তৈরি করবে।

```

এবারের বিশ্বকাপে ভারতের মূল চাবিকাঠি হবে:গেইল: (জসপ্রীত) বুমরাহ নিশ্চিত ভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেবে। আমি নিশ্চিত, ও দলে ফিরবে। আর অন্য জন হবে সূর্য (সূর্যকুমার যাদব)।ভারত বনাম পাকিস্তান অ্যাশেজের চেয়েও বড়:গেইল: ভারত বনাম পাকিস্তান- অ্যাশেজের থেকেও বড়। এটি একটি বিশ্ব মঞ্চে বিশাল বড় ম্যাচ। কোটি কোটি মানুষ তা দেখার জন্য অপেক্ষা করে। দেখা যাক, ১৫ তারিখে কি হয়। আমি এটা দেখার জন্য অপেক্ষা করছি।