“আমি কখনোই পারবো না..’,শচীনের রেকর্ড স্পর্শ করেও যা বললেন কোহলি,স্যালুট নেটিজেনদের

এবারের বিশ্বকাপের রীতিমতো একের পর এক ম্যাচ জিতে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলছে টিম ইন্ডিয়া। তার প্রধান কারণ ভারতীয় দলের ব্যাটসম্যান আবার ভারতীয় দলের বোলাররাও। ব্যাটসম্যানদের মধ্যে অন্যতম বিরাট কোহলি বিশ্বকাপের (World Cup 2023) ৩৭তম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ১০ চারের সাহায্যে ১২১ বলে অপরাজিত ১০১ রান করেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক বিরাট কোহলি (Virat Kohli), যার ভিত্তিতে ভারত ৫০ ওভারে ৫ উইকেটে ৩২৬ রান তোলে। এটি তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৪৯তম সেঞ্চুরি এবং এর সাথে তিনি তার নায়ক শচীন টেন্ডুলকারের (Sachin Tendulkar) ৪৯ তম ওয়ানডে রেকর্ডের সমকক্ষ হন। এই সেঞ্চুরিটি তার জন্য বিশেষ, কারণ তিনি এটি তার ৩৫ তম জন্মদিনে এসেছে।

প্রথম ইনিংস শেষ হওয়ার পর ধীর গতির ইনিংস সম্পর্কে বিরাট কোহলি বলেন- “এটা এমন একটি উইকেট ছিল যার ওপর ব্যাট করা কঠিন ছিল। রোহিত ও শুভমানের কাছ থেকে আমরা দারুণ শুরু করেছিলাম, আমার কাজ ছিল এটা চালিয়ে যাওয়া। দশম ওভারের পর থেকেই বল ঘুরতে শুরু করে। উইকেট ধীর হয়ে যায় এবং তারপরে আমার ভূমিকা বেড়ে যায়। আমি দীর্ঘ সময় ধরে ব্যাট করার চেষ্টা করছিলাম। টিম ম্যানেজমেন্ট আমাকে এমনটাই বলেছে।”

```

“শ্রেয়াস (Shreyas Iyer) ভাল খেলেছে এবং শেষ পর্যন্ত আমরা আরও কয়েকটি রান করেছি। এশিয়া কাপের সময় আমাদের মধ্যে অনেক কথা হয়েছে। আমরা তিন ও চার নম্বরে ব্যাট করি, তাই খেলাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য এই পার্টনারশিপ জরুরি ছিল। আমাদের দলে হার্দিক নেই, তাই আমরা জানতাম যে এক বা দুটি উইকেট আমাদের অনেক মূল্য দিতে পারে।”

তিনি আরো বলেন- “আমি ঈশ্বরের কাছে কৃতজ্ঞ যে তিনি আমাকে খেলার সুযোগ দিয়েছেন এবং দলের সাফল্যে অবদান রেখেছেন। এই দুর্দান্ত ভেন্যুতে এত বিশাল দর্শকের সামনে আমার জন্মদিনে সেঞ্চুরি করতে পারাটা দারুণ। পিচ ধীর গতির, আমাদের মানসম্পন্ন বোলিং লাইনআপও আছে, তবে আমাদের কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।উইকেট গুরুত্বপূর্ণ হবে, শুরুতে দুই উইকেট নেওয়া এই পিচের আচরণ থেকে তাদের চাপে ফেলবে।”

```

এরপর ভারতীয় দল বোলিং করলে রবীন্দ্র জাদেজার পাঁচ উইকেটের উপর নির্ভর করে দক্ষিণ আফ্রিকাকে মাত্র ৮৩ রানে অলআউট করে দেয় ভারত। তবে ম্যাচে দুর্দান্ত শতরানের কারণে প্লেয়ার অফ দ্যা ম্যাচ হন বিরাট কোহলি। তখন তিনি শচীন টেন্ডুলকারের সমকক্ষ হওয়া সম্পর্কে বলেন- “আমার হিরো শচীন টেন্ডুলকারের সমকক্ষ হতে পারাটা আমার কাছে খুবই আবেগপ্রবণ মুহূর্ত। আমি ওনার মত কখনো হতে পারব না, উনি আমার হিরো।”

সব মিলিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে শক্তিশালী দলকে মাত্র ৮৩ রানে বান্ডিল করে ইতিহাস করেছে ভারতীয় ক্রিকেট দল।