দল হারলেও দুরন্ত ইনিংসে সচিনের রেকর্ড ভেঙে ইতিহাস গড়লেন বিরাট কোহলি!

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের সিরিজের প্রথম দুটি ম্যাচে ইতিমধ্যে জিতে গেছে ভারতীয় দল এবং নিয়ম রক্ষার ম্যাচে আজকে সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল টিম ইন্ডিয়া এবং এই ম্যাচে ভারতের বেশ কিছু প্লেয়ার ফিরে এসেছে আবার বেশ কিছু প্লেয়ার কে বিশ্রামে পাঠানো হয়েছে যার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ শুভমান গিল এই ম্যাচে ভারতীয় দলে ছিল না। তার ভারতীয় দলের না থাকাটা একটা বড় ফ্যাক্টর ছিল কারণ তার অনুপস্থিতিতে ভারতীয় দল একটা ব্যাটসম্যান কম নিয়ে এগিয়েছিল এবং তার বদলে ওপেনিং করতে নেমেছিলেন ওয়াশিংটন সুন্দর। যাতে লাভ খুব একটা হয়নি তবে এই ম্যাচে নিজের জাত ছিয়েছেন বিরাট কোহলি।

অস্ট্রেলিয়া এই ম্যাচে ভালো ব্যাটিং করে যার দৌলতে ৩৫০ কার করে ফেলে তাদের টোটাল আর এই বিশাল রানের তারা করতে নেমে ভারতীয় দল প্রথম থেকে শুরুটা খুব ভালো করেছিল রোহিত শর্মার দুরন্ত ইনিংসের দৌলতে, তবে পরবর্তীকালে ওয়াশিংটন সুন্দর আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে গেলে সমস্ত দায়িত্ব এসে পড়ে এবং বিরাট কোহলির উপর। নতুন বলের বিরুদ্ধে রোহিত শর্মা তো ভালো ব্যাটিং করেছেন বটেই তার পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়ার দুর্দান্ত বোলিং অ্যাটাকের সামনে অনবদ্য ব্যাটিং করেছে বিরাট কোহলি।

```

প্রথম দুটি ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বোলিং এটাকে তাদের পেশ বোলার মিচিল স্টার্ক ছিলেন না, এমনকি দেখা মেলেনি প্যাট কামিন্স এরও, তবে তৃতীয় ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া তাদের পূর্ণ শক্তির বোলিং লাইনআপ নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে যেখানে স্টার্কের সাথে ছিলেন কামিনস এবং হেজেলউড। তবে বিরাট কোহলি ব্যাট নামার সাথে সাথেই একের পর এক বাউন্ডারি মারতে থাকেন এবং অনবদ্যভাবে গোটা মাঠ জুড়ে তিনি সিঙ্গেল নিতে থাকেন। ৬১ বলে ৫৬ রানের একটি অনবদ্য ইনিংস খেলেছেন বিরাট কোহলি, যার মধ্যে ছিল পাঁচটি বাউন্ডারি এবং একটি বিশাল ছক্কা। এই দুরন্ত হাফ সেঞ্চুরি দিয়ে বিরাট কোহলি আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ক্রিকেটে 66 তম অর্ধ শতরান পূর্ণ করে ফেললেন, সব ধরনের ক্রিকেট মিলিয়ে দেখতে গেলে এটা বিরাট কোহলির ১১৩ তম হাফ সেঞ্চুরি যা মহান ক্রিকেটারদের লিস্টে শচীনদের পাশে জায়গা পেয়েছে।

৪৫৪ ম্যাচে ১৪৫টি হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন মহান শচীন টেন্ডুলকার, এর পাশাপাশি ৩৮০ টি ম্যাচে ১১৮টি হাফ সেঞ্চুরি করেছেন শ্রীলংকার তারকা ক্রিকেটার কুমার সাঙ্গাকারা। আর এই দুই মহান ক্রিকেটারের পরেই তৃতীয় স্থানে জায়গা করে নিয়েছেন বিরাট কোহলি, তার ১১৩ টি সেঞ্চুরি দিয়ে মাত্র ২৬৯ টি ম্যাচ খেলে। যা স্পষ্ট করে দেয় যে বিরাট কোহলি কিভাবে নিজের জায়গা তৈরি করেছেন। এর পাশাপাশি আরও একটি রেকর্ড গড়েছেন কোহলি।

```

সাধারণত যারা ওপেনিং এ ব্যাট করে তারা পুরো ওভার খেলার সুযোগ পায় তবে ওপেনিং ছাড়া অন্য যেকোনো পজিশনে ব্যাট করা ব্যাটসম্যানদের যদি ধরা হয় তাহলে সবথেকে বেশি হাফ সেঞ্চুরি করেছেন বিরাট কোহলি ১১২ টি। এই তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন কুমার সাঙ্গাকারা ১১২ টি এবং অস্ট্রেলিয়ার তারকা ক্রিকেটার রিকি পন্টিং ১০৯ টি। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে আজকের ম্যাচে ভারতীয় দলের বোলাররা ভালো বোলিং করেছে কারণ রীতিমতো ৪০০ রান হওয়ার কথা ছিল অস্ট্রেলিয়ার তবে সেটাকে ৩৫০ এর কাছাকাছি রেখেছে। কিন্তু ভারতীয় দলের ব্যাটসম্যানরা ঠিকঠাক ব্যাটিং করতে পারেনি এটা বলা চলে কারণ যেভাবে সূর্য কুমার যাদব এবং কে এল রাহুল আউট হয়েছে যার কারণে ভারতীয় দল এই ম্যাচে পরাজিত হয়েছে এটা বলা চলে।

বিশাল বড় টোটাল যখন তারা করতে নামে কোন দল তখন প্রত্যেক ব্যাটসম্যানকেই কন্ট্রিবিউট করতে হয়, না হলে এত বড় টোটাল চেঞ্জ করা সম্ভব নয় কারণ একজন ব্যাটসম্যান খুব বেশি হলেও ১০০ রান করবে কিন্তু এখানে ৩৫০ করতে হলে আরো ব্যাটসম্যানদের সাহায্য দরকার। কিন্তু ভারতের কোন ব্যাটসম্যান সেঞ্চুরি করতে পারেনি তার পাশাপাশি ৪০-৫০ রানের কাছাকাছিতে আউট হয়ে গেছে ভারতের অধিকাংশ ব্যাটসম্যান।