সুপার ওভারে দিল ৩০ রান,নেদারল্যান্ডের কাছে লজ্জার হার দিয়ে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় উইন্ডিজের!

হারারের তাকাসিঙ্গা স্পোর্টস ক্লাবের মাঠে ওয়ানডে বিশ্বকাপের কোয়ালিফায়ারের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং নেদারল্যান্ডস। গত ম্যাচে জিম্বাবোয়ের কাছে হেরে যাওয়ার ফলে কিছুটা হলেও কঠিন হয়েছিল ক্যারিবিয়ানদের বিশ্বকাপের মূলপর্বে যাওয়ার লড়াই। ফলে ডাচদের বিরুদ্ধে ম্যাচে জিততেই হত তাদের। শুরুটা ব্যাট হাতে তারা ভালোই করেছিল। কিন্তু বল হাতেই যেন কোথায় খেই হারিয়ে ফেলে তারা। ৩৭৪ রানের বড় স্কোর খাড়া করার পরেও ডাচেরা ম্যাচকে সুপার ওভারে নিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

আর এই সুপার ওভারেই ক্যারিবিয়ান পেস বোলিং অলরাউন্ডার জেসন হোল্ডার জঘন্য বোলিং করে কার্যত একার হাতে দলকে হারের মুখে ঠেলে দেন। সুপার ওভারে তাঁর বোলিংয়ের বিরুদ্ধে ডাচ ব্যাটার লোগান ভ্যান বিক এক ওভারে ৩০ রান হাঁকান। আর এর সঙ্গে সঙ্গেই একাধিক লজ্জার নজির গড়ে ফেলেন হোল্ডার।ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে হোল্ডার হলেন প্রথম বোলার, যিনি এক ওভারে ৩০ বা তার অধিক রান দিয়েছে দু’বার, অর্থাৎ দুই ম্যাচে। যে লজ্জার রেকর্ড আর কোনও বোলারের নেই। এমন কী অ্যাসোসিয়েট দেশের কোনও বোলারেরও এই লজ্জার নজির নেই।

```

২০১৫ সালেই দক্ষিণ আফ্রিকার মারকুটে ব্যাটার এবি ডি’ভিলিয়ার্স দুই ম্যাচে হোল্ডারের বিরুদ্ধে এক ওভারে ৩০ বা তার বেশি‌ রান করতে সক্ষম হয়েছিলেন। পাশাপাশি এদিন আরও একটি লজ্জার নজির গড়েছেন হোল্ডার। এদিন ডাচদের বিরুদ্ধে ওয়ানডে হোক বা টি-২০ ক্রিকেটের দুই সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাট মিলিয়ে তিনি প্রথম বোলার হিসেবে এক ওভারে ৩০ রান দেওয়ার লজ্জার নজির গড়েন। এদিন লোগান ভ্যান বিকের হাতে বেদম পিটুনি খেতে হয়েছে তাঁকে। ওভারের ছ’টি বলে পরপর চার, ছয়, চার, ছয়, ছয় এবং চার হাঁকিয়েছেন লোগান।

জবাবে মাত্র ৮ রান সুপার ওভারে করতে সক্ষম হয় ক্যারিবিয়ানরা।বোলার জেসন হোল্ডারের এমন দুঃস্বপ্ন অবশ্য নতুন নয়। সাম্প্রতিক সময়ে আইপিএলের এক ম্যাচেও তাঁর সঙ্গে এমন ঘটনাই ঘটেছিল। মুম্বই ইন্ডিয়ান্স দলের হয়ে খেলার সময়ে ওয়াংখেড়েতে টিম ডেভিড ম্যাচের শেষ ওভারে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেলা জেসন হোল্ডারের বিরুদ্ধে পরপর তিন বলে তিনটি ছয় হাঁকিয়ে দলকে এক অবিশ্বাস্য জয় এনে দিয়েছিলেন। সেই ওভারে পরপর তিনটি ফুলটস বল করে বসেছিলেন হোল্ডার। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই, সোমবার হারারেতে সেই দুঃস্বপ্ন ফের ফিরিয়ে আনলেন হোল্ডার।

```

ম্যাচে দুই দল নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৩৭৪ রান করেছিল। ম্যাচ টাই হওয়ায়, তা গড়িয়েছিল সুপার ওভারে। আর সেখানেই হোল্ডারকে বেদম পিটুনি খেতে হয়েছে লোগান ভ্যান বিকের হাতে। এছাড়াও এদিন হোল্ডার ১০ ওভার বোলিং করে ৫৯ রান দিয়ে দু’টি উইকেট নিয়েছিলেন।