IPL থেকে ফিরে পাকিস্তানকে একাই ধ্বংস করলেন রাজা, জিম্বাবুয়ের কাছে আবার গো-হারা পাকিস্তান!

৫০ ওভারের ক্রিকেটে ডাবল সেঞ্চিুর করার সুযোগ হাতছাড়া হল জিম্বাবোয়ের তারকা ক্রিকেটার ক্রেগ এরভাইনের। দ্বিশতরানের দোরগোড়া থেকে দুর্ভাগ্যজনক রান-আউট হয়ে মাঠ ছাড়তে হয় তাঁকে। যদিও নিজের দলকে জয়ের ভিতে বসিয়ে দেন ক্রেগ। তার অনবদ্য ১৯৫ রানের ইনিংস এর জন্য ৩৮৫ রানের একটা বিশাল টোটাল পর্যন্ত পৌঁছে যায় জিম্বাবুয়ে। পাশাপাশি আইপিএল থেকে ফিরে জাতীয় দলের হয়ে বল হাতে রং ছড়ালেন সিকন্দর রাজা।

মূলত এরভাইন-রাজার যুগলবন্দিতেই পাকিস্তান-এ দলকে সিরিজের ষষ্ঠ বেসরকারি ওয়ান ডে ম্য়াচে ৩২ রানে পরাজিত করে জিম্বাবোয়ে সিলেক্ট।হারারেতে টস জিতে জিম্ববোয়ে সিলেক্টকে শুরুতে ব্যাট করতে পাঠায় পাকিস্তান-এ দল বা পাকিস্তান শাহিনস। জিম্বাবোয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটের বিনিময়ে ৩৮৫ রানের বিরাট ইনিংস গড়ে তোলে। ব্যাট হাতে রীতিমতো তাণ্ডব চালান এরভাইন। তবে নিশ্চিত দ্বিশতরান মাঠে ফেলে আসেন তিনি। ২২টি চার ও ৬টি ছক্কার সাহায্যে ১৪৮ বলে ১৯৫ রান করে রান-আউট হন ক্রেগ।শতরান হাতছাড়া করেন ওপেনার ইনোসেন্ট কাইয়া। তিনি ১০টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে ৭৯ বলে ৯২ রান করে আউট হন।

```

সিকন্দর রাজা করেন ১৯ বলে ১৫ রান। ক্যাপ্টেন শন উইলিয়ামস ২৫ বলে ২০ রান করেন। রিয়ান বার্ল ১৮ বলে ৩১ রানের যোগদান রাখেন।পাকিস্তানের হয়ে শাহনওয়াজ দাহানি ১০ ওভারে ১টি মেডেন নেওয়া সত্ত্বেও একাই খরচ করেন ১০৫ রান। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে অন্তত ১টি মেডেন নেওয়ার পরে সব থেকে বেশি রান খরচের লজ্জাজনক রেকর্ড গড়েন দাহানি। ২টি করে উইকেট নেন মহম্মদ আলি, আমের জামাল ও কাসিম আক্রম।জবাবে ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তান ৪৯.২ ওভারে ৩৫৩ রানে অল-আউট হয়ে যায়।

দল হারায় ব্যর্থ হয় মুবাসির খানের লড়াকু শতরান। তিনি ৬টি চার ও ৮টি ছক্কার সাহায্যে ৭৭ বলে ১১৫ রান করে মাঠ ছাড়েন। রোহিল নাজির ৮৭ ও ক্যাপ্টেন কামরান গুলাম ৫৬ রান করেন। হাসিবউল্লাহ খান ৩৫, ইমরান বাট ৬, ওমর ইউসুফ ৪, আমের জামাল ১৯ ও মহম্মদ আলি ৮ রানের যোগদান রাখেন।

```

জিম্বাবোয়ের হয়ে ১০ ওভার বল করে ৬৬ রানের বিনিময়ে ৩টি উইকেট নেন সিকন্দর রাজা। ২টি করে উইকেট দখল করেন ব্লেসিং মুজারাবানি, তানাকা শিবঙ্গা ও লিউক জংউই। ১টি উইকেট নিয়েছেন শন উইলিয়ামস। জিম্বাবোয়ে সিলেক্ট ৬ ম্যাচের বেসরকারি ওয়ান ডে সিরিজ জেতে ৪-২ ব্যবধানে।