স্কোরবোর্ডে একই রান, তবু কীভাবে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জিতল শ্রীলঙ্কা?

এশিয়া কাপ ২০২৩-এর সুপার ফোরের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের মুখোমুখি হয়েছিল শ্রীলঙ্কা। এই লড়াইকে আবার অনেকে ভার্চুয়াল সেমিফাইনালও বলেছিল। কারণ এই ম্যাচে যে দল জিতেছে সেই দলই ফাইনালে উঠেছে। আর এই ম্যাচে দাসুন শানাকার দল ২ উইকেটে জিতে ফাইনালে পৌঁছেছে। এই রোমাঞ্চকর ম্যাচে উভয় দলই স্কোর বোর্ডে সমানভাবে ২৫২ রান তোলে। তবুও শ্রীলঙ্কা সুপার ওভার ছাড়াই ম্যাচটি জয়ী হয়েছে। স্কোর সমান হওয়া সত্ত্বেও শ্রীলঙ্কা কীভাবে ম্যাচটি জিতল তা ভেবে উত্তর পাচ্ছেন না অনেকে। এমন ফল দেখে ক্রিকেট ভক্তরাও অবাক হয়েছেন। আপনিও যদি এই প্রশ্নটির উত্তর জানতে চান তাহলে আপনি সঠিক জায়গাতেই এসেছেন। জেনে নিন কীভাবে পাকিস্তান বনাম শ্রীলঙ্কা ম্যাচ টাই হওয়া সত্ত্বেও শ্রীলঙ্কাকে বিজয়ী ঘোষণা করা হল।

পাকিস্তান বনাম শ্রীলঙ্কা ম্যাচ বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। বৃষ্টি বিঘ্নিত হওয়ার কারণে ম্যাচটি প্রায় ২ ঘন্টা বিলম্বে শুরু হয়, এই কারণে ম্যাচটি পাঁচটি করে ওভার কাটা হয় এবং ম্যাচটি ৫০ এর বদলে ৪৫ ওভার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এই ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান দল। পাকিস্তানের স্কোর যখন ২৭.৪ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৩০ রান, আবার বৃষ্টি আসে এবং আবার খেলা বন্ধ করা হয়। কিছুক্ষণ পর আবার ম্যাচ শুরু হলে ম্যাচের অফিসিয়ালরা ম্যাচটিকে আর তিন ওভার করে কমাোর সিদ্ধান্ত নেন এবং ঠিক হয় ম্যাচটি এবার ৪৫ এর বদলে ৪২ ওভার করে খেলা হবে। এই সময়ে মহম্মদ রিজওয়ানের হাফ সেঞ্চুরির দৌলতে পাকিস্তান নির্ধারিত ৪২ ওভারে ২৫২ রান তোলে।

```

ম্যাচটি যখন বৃষ্টির দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল এবং ম্যাচটির ওভার কাটা হয়েছিল তখনই তাড়া করা দলকে ডাকওয়ার্থ-লুইস নিয়মের ভিত্তিতে অর্থাৎ ডিএলএস-এর নিয়ম অনুযায়ী একটি নতুন লক্ষ্য দেওয়া হয়েছিল। এমন পরিস্থিতিতে ৪২ ওভারে ২৫৩ রান নয়, ২৫২ রানের লক্ষ্য পেয়েছিল শ্রীলঙ্কা। যে কারণে পাকিস্তানের সমান রান করেও ম্যাচটি জিতে যায় শ্রীলঙ্কা। এই কারণেই এই ম্যাচটি টাই বলে ধরা হয়নি। সেই কারণেই এই ম্যাচে ২৫২ রান করেই জিতে যায় শানাকারা।

কুশল মেন্ডিসের অর্ধশতক এবং প্রতিকূল পরিস্থিতিতে চরিথ আসালঙ্কার ধৈর্যশীল ইনিংসের দৌলতে জয়ী হয় শ্রীলঙ্কা। এশিয়া কাপের বৃষ্টি-বিধ্বস্ত সুপার ফোর পর্বের অত্যন্ত রোমাঞ্চকর ম্যাচে ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে পাকিস্তানকে দুই উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে পৌঁছায় শ্রীলঙ্কা। রবিবার ভারতের মুখোমুখি হবে তারা। এদিন পাকিস্তানের ২৫২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে শ্রীলঙ্কা শেষ বলে আট উইকেটে ২৫২ রানে পৌঁছায়। মেন্ডিসের ৮৭ বলে আটটি চার ও একটি ছক্কার সাহায্যে ৯১ রান করেন এবং সাদিরা সমরাবিক্রমের (৪৮) সঙ্গে তৃতীয় উইকেটে ১০০ রানের গুরুত্বপূর্ণ জুটি গড়েন।

```

পরে চরিথ আসালঙ্কা ৪৭ বলে তিনটি চার ও একটি ছক্কার সাহায্যে অপরাজিত ৪৯ রান করে দলকে লক্ষ্যে পৌঁছে দেন। এদিনের হারের ফলে এশিয়া কাপ ২০২৩-এ বাবর আজমের পাকিস্তান দলের যাত্রা শেষ হয়। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দুর্দান্ত জয় দিয়ে সুপার ফোর পর্বের সূচনা করেছিল পাকিস্তান, কিন্তু ভারত ও শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে টানা দুটি পরাজয়ের ফলে তাদের টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিতে হয়।