ICC Ranking-এ চমক,পাকিস্তান অস্ট্রেলিয়াকে টপকে সবার উপরে উঠল ভারত !

এশিয়া কাপে দুরন্ত পারফরমেন্স করেছে টিম ইন্ডিয়া বিশেষত ভারতীয় দলের বোলাররা যেভাবে বোলিং করেছে এবং পাকিস্তানের মতো দলের বিরুদ্ধে যেভাবে ভারতের ব্যাটসম্যানরা দায়িত্ব নিয়ে একের পর এক সেঞ্চুরি করেছে তা বিশ্বকাপে ভারতীয় দলকে আশা জোগাচ্ছে। বেশ কিছু প্রশ্নের উত্তর ভারতীয় দল এশিয়া কাপে পেয়ে গেছে যেমন ভারতের 4 নাম্বারে কে খেলবে, তার জন্য রাহুল শ্রেয়স রয়েছে, আবার বুমরহের বোলিং, আবার রোহিতের ফর্ম! সব উত্তরই পেয়েছে ভারত।আর ভারতীয় দলের দুরন্ত পারফরমেন্সে বিশ্বের এক নম্বর দলে পরিণত হলো রোহিত শর্মার টিম ইন্ডিয়া।

দক্ষিণ আফ্রিকা এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে চলছিল একটি ওয়ানডে সিরিজ যেখানে একের পর এক ইতিহাস তৈরি হয়েছে, সেই সিরিজের অন্তিম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে পঞ্চম ওডিআই-এ হেরে ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে ফের এক নম্বর জায়গা হারাল অস্ট্রেলিয়া। তারা সোজা তিনে নেমে গেল। ভারত দ্বিতীয় স্থান থেকে এক ধাপ উপরে উঠে বর্তমানে বিশ্বের এক নম্বর দল আর নেপালের বিরুদ্ধে জয়লাভ করে দ্বিতীয় স্থানে জায়গা ধরে রেখেছে পাকিস্তান। কারণ পাকিস্তান প্রমাণ করেছে বারংবার যে তারা নেপাল বাংলাদেশের মতো দুর্বল দলের বিরুদ্ধে ছাড়া ম্যাচ জিতবে না।

```

বিশ্বের এক নম্বর ব্যাটসম্যান বাবর আজম বারংবার প্রমাণ করেছেন তিনি জিম্বাবুয়ে অথবা নেপালের মতো দল ছাড়া তিনি রান করবেন না। আর সেই কারণেই নেপালের বিরুদ্ধে ১৫১ ছাড়া পুরো এশিয়া কাপে আর কোন রান নেই বাবর আজমের। তবে মজার বিষয় হল, ভারত এবং পাকিস্তানের রেটিং পয়েন্ট সমান। ১১৫ করে রেটিং পয়েন্ট দুই দেশের। তবে ভারত দশমিক পয়েন্টে এগিয়ে থাকার সুবাদে এক নম্বর জায়গার দখল নিয়েছে। ১১৩ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তিনে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ১০৪ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে চারে উঠে এসেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

ভারত কিন্তু রবিবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এশিয়া কাপের ফাইনালে বড় জয় পেয়েছে। আর তাই তারা ওডিআই র‌্যাঙ্কিংয়ে প্রথম স্থানে জায়গা পেয়েছে। এদিকে পাকিস্তান এশিয়া কাপের শিরোপা জিততে পারেনি, তবে অন্যান্য ম্যাচে তাদের ধারাবাহিক পারফরম্যান্সের কারণে দ্বিতীয় নম্বর র‌্যাঙ্কিংয়ে রয়েছেন বাবর আজমরা। শুক্রবার ভারত যদি বাংলাদেশের কাছে না হারত, তবে তারা পাকিস্তানের থেকে দূরত্ব বাড়াতে পারত। কিন্তু সেই ম্যাচ হেরে বড় সুযোগ হাতছাড়া করেছে ভারত। তবে ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া ২২ সেপ্টেম্বর থেকে তিন ম্যাচের সিরিজে একে অপরের মুখোমুখি হবে, যেখানে দুই দলের কাছেই শীর্ষে ওঠার সুযোগ থাকবে।অন্যদিকে পাকিস্তান এখন সরাসরি বিশ্বকাপে খেলবে।

```

এদিকে রবিবার জোহানেসবার্গে ব্যাট-বলে ঝড় তুলে অজিদের কোণঠাঁসা করে দেন মার্কো জানসেন। যার ফলে প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে পঞ্চম ওডিআই ১২২ রানের বিশাল বড় ব্যবধানে হেরে সিরিজ হাতছাড়া করে অজিরা। পাঁচ ম্যাচের ওডিআই সিরিজে প্রথম দু’টি ম্যাচে জয় দিয়ে দুরন্ত ছন্দে শুরু করেছিল অস্ট্রেলিয়া। এর পর দুরন্ত প্রত্যাবর্তন করে শেষের তিন ম্যাচে অজিদের নাস্তানাবুদ করে হারিয়ে সিরিজ পকেটে পুড়ে ফেলল দক্ষিণ আফ্রিকা। এদিন টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকা ৯ উইকেটে ৩১৫ রান করে। এডেন মার্করাম সর্বোচ্চ ৯৩ রান (৮৭ বলে) করেন। এছাড়া ৬৩ করে (৬৫ বলে) ডেভিড মিলার। ২৩ বলে ৪৭ করেন মার্কো জানসেন। ফেহলুকওয়েও ১৯ বলে ৩৮ করে অপরাজিত থাকেন। অজিদের হয়ে তিন উইকেট নেনে অ্যাডাম জাম্পা। ২ উইকেট নেন সিন অ্যাবট।অজিরা ৩১৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ২০০ রানের গণ্ডিও টপকাতে পারেনি। ৩৪.১ ওভারে ১৯৩ রানে অলআউট হয়ে যায় তারা।

ওপেন করতে নেমে দলের অধিনায়ক মিচেল মার্শ সর্বোচ্চ ৭১ রান (৫৬ বলে) করেন। এছাড়া মার্নাস ল্যাবুশেন করেন ৪৪ রান (৬৩ বলে)। ২৩ রান করেন অ্যাবট। বাকিদের অবস্থা তথৈবচ। দক্ষিণ আফ্রিকার মার্কো জানসেন একাই ৫ উইকেট তুলে নেন। ৪ উইকেট নেন কেশব মহারাজা।সব মিলিয়ে বিশ্বকাপের আগে পাকিস্তান দলের যে একটা ডাউন ফল শুরু হয়েছে এটা বলাই যায় কারণ একদিকে ভারতের কাছে পড়া যায় পাশাপাশি শ্রীলংকার কাছেও লজ্জা জনক ভাবে হেরেছে পাকিস্তান আবার আইসিসি Ranking এ নিচের দিকে এগোচ্ছে পাকিস্তান।