ভারতীয় দলে জায়গা পেতেই সৌরভকে নিয়ে বড়ো মন্তব্য করলেন জিতেশ শর্মা!গর্ব সারা বাংলার!

গত কয়েকটা আইপিএল মরশুমে জিতেশ শর্মা বিদর্ভ এবং পঞ্জাব কিংসের উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান হিসেবে ভালো পারফরম্যান্স করে সকলকে মুগ্ধ করেছিলেন এবং নিজেকে ফিনিশারের ভূমিকায় প্রমাণ করেছেন। তাঁর সাহসী স্ট্রোকপ্লে দেখে উচ্ছ্বসিত হয়েছেন ভারতের প্রাক্তন ক্রিকেটার অনিল কুম্বলে এবং বীরেন্দ্র সেহওয়াগ। জিতেশকে তাঁরা ভারতের টি-টোয়েন্টি সেট আপে দেখতে চান বলে দাবি করেছেন।

চীনের হ্যাংঝুতে অনুষ্ঠিত ১৯তম এশিয়ান গেমসের জন্য ভারতীয় দলে ২৯ বছরের তারকাকে সুযোগ দেওয়া হয়েছে। জিতেশ বলেছেন যে, এশিয়াডের জন্য নির্বাচিত হওয়া তাঁর কাছে বিশাল বড় বিষয়। তাঁর জন্য এটি একটি জীবন-পরিবর্তনকারী অভিজ্ঞতা হতে চলেছে। তবে এশিয়ান গেমসে অংশ নিতে যাওয়ার আগে তিনি নীরজ চোপড়ার সঙ্গে দেখা করতে চান। এবং সমগ্র ভারতীয় দলের সঙ্গে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সময় হাঁটতে চান।

```

জিতেশ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে বলেছেন, ‘মিলখা সিংয়ের সেই মুভির মতোই জোশটা আসবে, যখন সবাই একসঙ্গে হাঁটব। আমাদের দেশের শীর্ষ ক্রীড়াবিদদের সঙ্গে হাঁটা একটি পরম সৌভাগ্যের বিষয় হবে।’ তিনি যোগ করেছেন, ‘আমি নীরজ চোপড়ার সঙ্গে দেখা করতে চাই। তিনি আমার আইডল। তিনি একটি অলিম্পিক্সে সোনা জিতেছেন। আমি ওঁর সঙ্গে দেখা করতে চাই এবং ওঁর মানসিক জোর নিয়ে কথা বলার চেষ্টা করব। টিম গেমের চেয়ে সিঙ্গল গেমগুলো কঠিন হয়। ক্রিকেটে, আপনি সব সময়ে আরও দশ জনের সঙ্গে থাকেন। সব সময়ে সেই নৈতিক সমর্থন পান। কিন্তু একটি স্বতন্ত্র খেলায়, আপনি একা থাকেন। লড়াইটা একা করতে হয়।’

জিতেশ আরও বলেছেন, ‘অন্যান্য ক্রীড়াবিদদের সঙ্গে গেমস ভিলেজে থাকা, তাদের সঙ্গে প্রাতঃরাশ করা এবং জিমে তাদের সঙ্গে প্রশিক্ষণ করা খুব ভালো অভিজ্ঞতা হবে। ওদের রুটিন বোঝা এবং কী ভাবে ওরা লড়াই করছে, সেটা বোঝা যাবে। শুধুমাত্র ক্রিকেট টুর্নামেন্টে এই অভিজ্ঞতাগুলো হয় না। এটি আমার জন্য একটি জীবন পরিবর্তনকারী অভিজ্ঞতা হবে।’

```

ছেলেবেলায় জিতেশের কোনও কোচ ছিল না, এবং ইউটিউবে ভিডিয়ো দেখে ক্রিকেট শিখতে হয়েছে। সেই ভিডিয়োগুলির বেশির ভাগই আবার অ্যাডাম গিলক্রিস্ট এবং সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের। তিনি এখন ফের ইউটিউবের উপর নির্ভর করছেন এবং ৩৬০ ডিগ্রি ব্যাটার হওয়ার আকাঙ্খা নিয়ে তাঁর ব্যাটিংয়ে কাজ শুরু করেছেন এবং এর জন্য তিনি সূর্যকুমার যাদবের ব্যাটিং ভিডিয়োগুলি দেখতে শুরু করেছেন। এবং নেটেও তাঁর অনুশীলনও করছেন।

জিতেশ বলেছেন, ‘আমি শুধু সূর্যকুমার যাদবের খেলা দেখছি। আমার ওঁর মতো স্কিল নেই। কিন্তু আমি ওঁর ভিডিয়ো দেখছি, উনি কী ভাবে মাঠে ঝুঁকিমুক্ত শটগুলো খেলেন, শিখছি। আমি ওঁর ব্যাটিং থেকে শেখার চেষ্টা করছি। প্রত্যেকের একটি আলাদা স্কিল সেট আছে। আমি শুধু নিজের গেম খেলেই ৩৬০ ডিগ্রি শট খেলার চেষ্টা করব।’