কপিল দেবের ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপের রেকর্ড ভেঙে কঠিন লড়াই করে ইতিহাস গড়লেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল !

আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে আজকে মুখোমুখি হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া দল যেখানে অনেকে হয়তো এক্সপেক্ট করেছিলেন যে অস্ট্রেলিয়া খুব সহজে জয়লাভ করবে কিন্তু আফগানিস্তানের দল বর্তমানে যে ধরনের ফর্মে রয়েছে তাতে অসংখ্য ক্রিকেট ভক্ত এটা অবশ্যই মাথায় রেখে ছিল যে আফগানিস্তান অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে দুরন্ত লড়াই করবে আর খেলার ময়দানে গিয়ে সেটাই দেখা যায়। তবে খেলার সবকিছু যেন একা হাতেই পরিবর্তন করে দেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। ম্যাক্সওয়েল দা বিগ শো যাকে বলা হয় তিনি আজকে দেখিয়ে দিয়েছেন তার আসল কোয়ালিটি।

টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেয় আফগানিস্তানের দল। প্রথম থেকেই খুবই দুর্দান্ত ব্যাটিং করে আফগানিস্তানের দল এবং লম্বা পার্টনারশিপ করার দিকে এগিয়ে যায়, যদিও ওপেনার গুরবাজ আউট হয়ে ফিরে গেলেও অন্য ওপেনার ইব্রাহীম জাদ্রান একটা দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করেন। তার সেঞ্চুরি সত্বেও পরের দিকে রাশিদ খানের দুরন্ত ইনিংসের দৌলতে ২৯১ রান পর্যন্ত পৌঁছে যায় আফগানিস্তানের দল । যে রান করা এই অবস্থাতে কোনভাবেই সম্ভব ছিল না অস্ট্রেলিয়া দলের, যেখানে আফগানিস্তানের কাছে ছিল চারটি দুর্দান্ত স্পিনার। যদিও অস্ট্রেলিয়া দলকে রীতিমতো ধ্বংস করেন আফগানিস্তানের পেস বোলাররা। এমনকি অস্ট্রেলিয়া দলকে রীতিমত নেস্টনাবুদ করে দেওয়া সত্ত্বেও ম্যাক্সওয়েল একা হাতে পুরো ম্যাচটি কে জিতিয়ে দিলেন অস্ট্রেলিয়াকে।

```

দুরন্ত ইনিংসে আজকে কপিল দেবের ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপের রেকর্ড ভেঙে চুরমার করে দিয়েছেন। বিশ্বকাপের ইতিহাসে অষ্টম উইকেটের জন্য সবথেকে বড় ব্যাটিং পার্টনারশিপ ছিল কপিল দেব এবং কিরমানীর 125 রানের। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে নিজে ডবল সেঞ্চুরি করে ফেলেছেন এবং ২০১ রানের একটি অনবদ্য ইনিংস খেলেছেন। আর এই দুরন্ত ইনিংসের জন্য ম্যাক্সওয়েল প্যাট কামিন্স এর সাথে দুরন্ত পার্টনারশিপে কপিল দেব এবং কিরমানির রেকর্ড ভেঙে ২০২ রানের পার্টনারশিপ করে ফেলেছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও তার সাথে ক্যাপ্টেন প্যাট কামিন্স।

এক্ষেত্রে আরও একটা জিনিস গুরুত্বপূর্ণ ম্যাক্সওয়েল যে মুহূর্তে ৩৩ রানে ব্যাট করছিলেন তখন তার একটা ক্যাচ মিস করে ফেলে আফগানিস্তানের দল। যার ফলে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল তারপর পরবর্তীকালে দুর্দান্ত ইনিংস খেলে একটি দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করে ফেলেন এবং রীতিমতো আফগানিস্তানকে এই ম্যাচে একতরফা ভাবে পিছনে ফেলে দেন। আজকের ম্যাচের এই দুর্দান্ত জয় দিয়ে অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে কোয়ালিফাই করলো।

```

পাশাপাশি আফগানিস্তান দলের তরফ থেকে অধিনায়কত্ব নিয়েও বেশ কিছু প্রশ্ন উঠতে পারে কারণ যে মুহূর্তে ম্যাক্সওয়েল স্পিনারদের বিরুদ্ধে দুর্দান্ত ব্যাটিং করছিলেন সেই সময়ে আরো স্পিন বোলারদেরকেই ব্যবহার করেছে আফগানিস্তান দল যেখানে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ব্যক্তিগতভাবে স্পিন খুব ভালো খেলে। তবে আফগানিস্তানের বোলাররা তাদের সমস্ত বল ম্যাক্সওয়েলের বডির উদ্দেশ্যে করেন অর্থাৎ সেই বল ম্যাক্সওয়েলের খেলা খুব সহজ হয়ে যায়। যেখানে তিনি পা নাড়াতেই পারছিলেন না সুতরাং তার থেকে দূরে বল করলে রান করা খুব মুশকিল হত এমনকি আউট হতেও পারতেন কিন্তু আফগানিস্তান বোলাররা তার খেলাটা খুব সহজ করে দিয়েছে তার বডিতে বল করে।

যদিও শেষের দিকে ম্যাক্সওয়েল আর কোনভাবেই হাঁটতে পর্যন্ত পারছিলেন না কিন্তু তার সত্ত্বেও একের পর এক চার এবং ছয় মেরেই চলেছিলেন যা রীতিমতো প্রশংসার যোগ্য। ম্যাক্সওয়েলের এই দুর্দান্ত ব্যাটিং অবাক করে দেয় মুম্বাইয়ের ওয়ানখেরে স্টেডিয়ামের দর্শকদের।