বিশ্বকাপে এই ২ ক্রিকেটারকেই অস্ট্রেলিয়ার তুরুপের তাস বেছে নিলেন মাইক হাসি !

সামনেই রয়েছে ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ আর সেই বিশ্বকাপ কে সামনে রেখে ইতিমধ্যেই দল ঘোষণা করে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার দল এবং সেই একই দল নিয়ে রীতিমতো তারা ভারতের বিরুদ্ধে একটি সিরিজ খেলতে চলেছে, মূলত বিশ্বকাপের আগে ভারতের মাটিতে এটা এক ধরনের প্রস্তুতি বলা চলে। অস্ট্রেলিয়ার দল বর্তমানে বিশ্বের শক্তিশালী দলগুলির মধ্যে অন্যতম। তবে অজি দলে এত সংখ্যক ম্যাচ উইনার থাকলেও দুজনকে বেছে নিয়েছেন অস্ট্রেলিয়া লেজেন্ড মাইক হাসি।

আগামী অক্টোবরে ভারতের মাটিতে বসতে চলেছে ওয়ান ডে বিশ্বকাপের (ODI World Cup 2023) আসর। অনেকেই রোহিত (Rohit Sharma) বাহিনীকে হট ফেভারিট বেছে নিয়েছেন টুর্নামেন্টের জন্য। তবে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা বেছে নিয়েছেন কয়েকটি দেশকে যারা ভারতকে বেগ দিতে পারেন টুর্নামেন্টে। সেই দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম উল্লেখযোগ্য অস্ট্রেলিয়া (Australia Cricket Team)। প্যাট কামিন্সের নেতৃত্বে আসন্ন টুর্নামেন্টে খেলতে নামবে অজিরা। প্রাক্তন অজি ওপেনার মাইক হাসি ২ জন প্লেয়ারকে বেছে নিয়েছেন। তাঁর মতে মিচেল মার্শ ও অ্যাডাম জাম্পা অস্ট্রেলিয়ার পারফরম্য়ান্সে বড় ভূমিকা নিতে পারেন। তাঁদের সাফল্যের ওপর বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার সাফল্য নির্ভর করছে বলে মনে করেন অজিরা।

```

এক সাক্ষাৎকারে হাসি বলেন, ”আমার মনে হয় অ্যাডাম জাম্পা পুরো টুর্নামেন্টে অজিদের হয়ে মাঠে বড় ভূমিকা নিতে পারে। ভারতের মাটিতে গত কয়েক বছরে দারুণ পারফরম্য়ান্স করেছে জাম্পা।” উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে প্রথমবার সীমিত ওভারের ফর্ম্যাটে জাতীয় দলে সুযোগ পান। এরপর থেকে ৭৯ ওয়ান ডে ম্যাচ খেলে ১৩১ উইকেট ঝুলিতে পুরেছে ৩১ বছরের এই লেগস্পিনার। হাসি মনে করেন ভারতের পিচে ও এখানকার পরিবেশে জাম্পা বড় ভূমিকা নিতে পারবে।

প্রাক্তন বাঁহাতি অজি ওপেনার আরও বলেন, ”আরও একজন রয়েছে সে হল মিচেল মার্শ। যে টুর্নামেন্টে প্রভাব ফেলতে পারে। মার্শ দলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে। প্রথম তিনে এখন ব্যাটিং করে মার্শ। এছাড়াও আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে খেলছে মার্শ এখন।” উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে অস্ট্রেলিয়া যে ওয়ান ডে বিশ্বকাপে জয় ছিনিয়ে নিয়েছিল সেই দলের সদস্য ছিলেন মাইক হাসি।

```

সব মিলিয়ে, এবারের বিশ্বকাপ অত্যন্ত জটিল এবং লড়াই দিয়ে পরিপূর্ণ থাকবে তার কারণ সবকটি দল চাইবে এই টুর্নামেন্টে জয়লাভ করতে। ভারতের মাটিতে হচ্ছে সুতরাং ভারত চাইবে ২০১১ সালের ঘটনাকে রিপিট করতে, আবার ইংল্যান্ড চাইবে তাদের সম্মান ধরে রাখতে, আবার অস্ট্রেলিয়া সম্প্রতি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে জিতেছে আবার অ্যাসেজ বাড়ি নিয়ে গেছে, সুতরাং তারাও কনফিডেন্সে টগবগ করছে।