‘আগে ঠিক করো IPL গুরুত্ব পাবে নাকি জাতীয় দল’, WTC নিয়ে বি’স্ফোরক মন্তব্য রবি শাস্ত্রীর!

আশঙ্কা ছিলই, টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ভারতীয় ক্রিকেটারদের প্রথম দু’দিনের খেলা দেখে সেই আশঙ্কা কিছুটা হলেও সত্যি প্রমাণিত হচ্ছে বলে মত বিশেষজ্ঞদের। আসলে আইপিএলের মতো দীর্ঘ টুর্নামেন্ট খেলে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে নামতে হওয়ায় ভারতীয় ক্রিকেটারদের ক্লান্তি গ্রাস করতে পারে মত প্রকাশ করেছিলেন রিকি পন্টিংয়ের মতো প্রাক্তন তারকা।

ডব্লিউটিসি ফাইনালের প্রথম ২ দিনে ভারতীয়দের খারাপ পারফর্ম্যান্সের পরে স্বাভাবিকভাবেই জাতীয় দল বনাম আইপিএলের দ্বন্দ্ব নিয়ে শুরু হয়ে যায় চর্চা। টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন হেড কোচ রবি শাস্ত্রী এক্ষেত্রে ভারতের প্রস্তুতিতে খামতি নিয়ে বিসিসিআইকে কাঠগড়ায় তোলেন। প্রাক্তন তারকা হরভজন সিং প্রকারান্তরে প্রশ্ন তোলেন ক্রিকেটারদের দায়বদ্ধতা নিয়ে।শাস্ত্রী বলেন, ‘আগে ঠিক করো কোনটা প্রাধান্য পাবে। ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট নাকি জাতীয় দল। যদি আইপিএল আগ্রাধিকার পায়, তাহলে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের মতো এমন গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টে সাফল্যের কথা ভুলে যাও। যদি এখানে সফল হতে চাও, তবে আইপিএল খেলবে কিনা, তা নিয়ে ভাবতে হবে।’

```

শাস্ত্রী আরও বলেন, ‘সিদ্ধান্ত নিতে হবে বিসিসিআইকে। কেননা ভারতে ক্রিকেট নিয়ন্ত্রণ করে বিসিসিআই। ক্ষমতা রয়েছে ওদের হাতে। ক্রিকেটারদের চুক্তি রয়েছে ওদের হাতে। বিসিসিআইয়ের উচিত আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজিদের হাতে এমন শর্ত ধরিয়ে দেওয়া যে, যদি জাতীয় দলের স্বার্থে কোনও ক্রিকেটারকে আইপিএল থেকে দূরে সরিয়ে রাখা প্রয়োজন হয়, তবে সেটা করার অধিকার থাকবে তাদের। এটা বললে চলবে না যে, ফ্র্যাঞ্চাইজি এত টাকা দিচ্ছে। ফ্র্যাঞ্চাইজি তো চাইবেই গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটারকে সব ম্যাচে খেলাতে। বিসিসিআইয়ের আগে শর্ত ধরিয়ে দেওয়া উচিত।

তার পরে ফ্র্যাঞ্চাইজি ঠিক করবে কোন প্লেয়ারকে কত টাকা দেবে না দেবে। দেশের স্বার্থে দু-একটা চুক্তির শর্ত জুড়তে অসুবিধা কোথায়?’শাস্ত্রীর কথার রেশ টেনে হরভজন বলেন, ‘ক্রিকেটারদের নিজেদেরও দায়বদ্ধতা দেখানো উচিত। কেননা ওরাই নিজেদের শরীর, নিজেদের ফিটনেস নিয়ে সব থেকে ভালো বুঝবে। বিসিসিআইয়ের পক্ষে সেটা বোঝা সম্ভব নয়। ক্রিকেটারদের ঠিক করতে হবে তারা আইপিএল খেলবে নাকি জাতীয় দলকে প্রাধান্য দেবে।

```

ওদের যদি মনে হয় আইপিএল খেলে সব শক্তি বেরিয়ে যাচ্ছে, তাহলে বিশ্বকাপের মতো গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টের আগে দু-একটা মরশুম আইপিএল না খেললেও চলে। বুঝতে হবে যে, ভারতের হয়ে খেলার জন্যই তাদের বিশ্বজোড়া খ্যাতি। শুধুমাত্র আইপিএল খেলে সারা বিশ্বে বিখ্যাত হওয়া যায় না।’