WWWWW শ্রীলঙ্কাকে একা হাতে ধ্বংস করে কপিল দেবের ঐতিহাসিক রেকর্ড ভেঙে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন সিরাজ !

শ্রীলংকার বিরুদ্ধে এশিয়া কাপের ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে ভারতীয় দল, তবে ম্যাচ যেভাবে শুরু হয় তা হয়তো শুরু হওয়ার আগে পর্যন্ত কল্পনা করতে পারে নি কোন দল বা কোন ক্রিকেট ভক্তরাও। বুমরা ভারতীয় দলে আসার পর থেকে এটা স্পষ্ট হয়ে গেছে যে প্রথমেই তিনি দু একটা উইকেট অবশ্যই নেবেন, তবে আজকে তিনি তো প্রথম উইকেটটা তুললেন কিন্তু তারপরে উইকেটের লাইন লাগিয়ে ফেললেন মোহাম্মদ সিরাজ। পাঁচ মিনিটের ব্যবধানে লাগাতার পাঁচটি উইকেট তুলে নিলেন সিরাজ।

ভারতীয় দলের সুইং এর সামনে দাঁড়ানোর ক্ষমতা ছিল না ছিল শ্রীলংকার ব্যাটসম্যানদের এটা তো স্পষ্ট, তবে সিরাজ যে অনবদ্য বোলিং করে চলেছে লাগাতার কয়েকটি ম্যাচ ধরে, আজকেও তিনি সেই ফর্ম ধরা রেখেছেন এবং বলা চলে যে দুর্দান্ত বোলিং করার আসল ফল তিনি আজকে পেয়েছেন। কুশাল পেরেরাকে প্রথমে প্যাভিলিয়নের ফিরিয়ে দেন বুমরাহ, তবে তারপর থেকে লাগাতার পাঁচটি উইকেট নিয়ে চমক দিলেন সিরাজ, প্রথমে পাথুম নিসাংকা ২ রানে ফিরে যান, এরপর ফর্মে থাকা শ্রীলংকার অন্যতম দুর্দান্ত ক্রিকেটার সামারাবিক্রমকে শূন্য রানে ফিরিয়ে দেন সিরাজ।

```

তারপরেও থামেননি সিরাজ, এরপরে তিনি শ্রীলংকার মিডিল অর্ডারের সবথেকে বড় খুঁটি আসালঙ্কাকে প্যাভিলিয়নে ফিরিয়ে দেন। যিনি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কাকে একটা অন্যতম ম্যাচ জিতিয়েছিলেন সেই গুরুত্বপূর্ণ প্লেয়ার ফিরে যান এবং তারপরে ধনঞ্জয় সি সিলভাকেও অবিশ্বাস একটি বল দিয়ে আউট করেন সিরাজ। শ্রীলংকা ইনিংসকে কোনরকমে সামলাতে নামেন শ্রীলংকার ক্যাপ্টেন দাসুণ সানাকা, কিন্তু অবিশ্বাস একটি আউটসুইং দিয়ে তাকেও বোল্ড করে দেন মোঃ সিরাজ।

অনবদ্য বোলিং দিয়ে সিরাজ ভারতীয় দলকে এই ম্যাচে যে পজিশনে এনে দেন তা রীতিমতো প্রশংসার যোগ্য। এই নিয়ে তাই কোন সন্দেহ নেই যে এই ম্যাচের ম্যান অব দ্যা ম্যাচ অবশ্যই মোঃ সিরাজ। তার অনবদ্য বোলিংয়ের কোনরকম জবাব শ্রীলংকার ব্যাটসম্যানদের কাছে ছিল না।

```

এক্ষেত্রে শ্রীলংকার ব্যাটসম্যানরা যে খুব খারাপ ব্যাটিং করেছে তা বলা যাবে না তার কারণ ভারতীয় বোলাররা অনেক ভালো বোলিং করেছে বিশেষত সিরাজ এমনটাই বলা যায় কারণ শ্রীলংকার ব্যাটসম্যানদের যে খুব বেশি দোষ ছিল এরকমটা বলা যাবে না।

সব মিলিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে যে ধরনের কম্পিটিশন এবং দুর্দান্ত একটা খেলা দেখার অপেক্ষা করছিল সারা ভারত এবং এশিয়া মহাদেশের ক্রিকেট ভক্তরা সেই আশা আর পূর্ণ হলো না, একতরফা ম্যাচে রীতিমতো এগিয়ে গেল ভারত।