অজি ব্যাটিংকে একা হাতে ধ্বংস করে কপিল দেবের রেকর্ড ভেঙে অনবদ্য বিশ্বরেকর্ড গড়লেন শামি !

সামনেই ওডিআই বিশ্বকাপ। তার আগে ভারতীয় দলে ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ওডিআই সিরিজ খেলতে নেমেছে। দুই দলই এই সিরিজকে প্রস্তিতি হাসাবে দেখছে। এই সিরিজের পরই বিশ্বকাপ শুরু হয়ে যাবে। যদিও টিম ইন্ডিয়া অজিদের বিরুদ্ধে প্রথম দুই ওডিআই ম্যাচে বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মাদের রাখেনি। বেশ কিছু ক্রিকেটারকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে।আজ অর্থাৎ শুক্রবার টিম ইন্ডিয়া মোহালিতে সিরিজের প্রথম ওডিআই ম্যাচে নেমেছে। এদিন প্রথমে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া। ভারত বল করতে নেমে অজিদের মাত্র ২৭৬ রানের অলআউট করে দেয়।

বল হাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন মহম্মদ শামি। একাই ৫ উইকেট নেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এই প্রথমবার পাঁচ উইকেট নিলেন ভারতীয় দলের এই পেসার। ১০ ওভার বল করে ১টি মেডেনসহ ৫১ রান দেন তিনি।এদিন একই সঙ্গে বেশ কিছু রেকর্ডও গড়েন শামি। আজই সবচেয়ে কম রান খরচ করে ৫ উইকেট নিলেন তিনি। এর আগে ২০১৯ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৫ উইকেট নেন এই পেসার। সেবার তিনি ১০ ওভার বল করে একটি মেডেন সহ ৬৯ রান খরচ করেন। এতদিন এটাই ছিল তাঁর ৫ উইকেটে সবচেয়ে কম রান দেওয়া। এবার নিজের সেই রেকর্ড ভেঙে দিলেন তিনি।শুধু তাই নয়, তিনি আরও বেশ কিছু রেকর্ড গড়েন।

```

প্রথমবার অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে পাঁচ উইকেট নিলেন তিনি। গত ম্যাচে অর্থাৎ এশিয়া কাপের ফাইনালে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ৫ উইকেট নেন মহম্মদ সিরাজ। ভারতীয় সেই পাসারের দাপটে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারদের অবস্থা ঠিক হয়েছিল, তা কারোর অজানা নয়। ঠিক পরের ম্যাচেই ভারতের আরও এক পেসার পাঁচ উইকেট নিলেন। সেদিক থেকে দেখতে গেলেও এটা একটি রেকর্ডের মধ্যে পড়ে।এর আগে অর্থাৎ ১৯৯৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ২১ রানে ৫ উইকেট নেন নিখিল চোপড়া।

ঠিক পরের ম্যাচেই ৬ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন সুনীল যোশি। এবার এই দুই ভারতীয় জুটির পর নাম লেখালেন সিরাজ এবং শামি জুটি। গত ম্যাচে ২১ রানে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন সিরাজ এবার এদিন ৫১ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিলেন শামি। দ্বিতীয় ভারতীয় জুটি হিসাবে এই রেকর্ড গড়লেন তারা।

```

এদিন পাঁচ উইকেট নেওয়ার পর ভারতীয় এই পেসার জানান, ‘এটা দলের জন্য যেমন ভালো, ঠিক তেমনই আমার জন্যও খুব ভালো। কারণ সামনেই বিশ্বকাপ। ফলে এমন ইনিংসের প্রয়োজন ছিল। আজ আমি ঠিক জায়গায় বল করে গিয়েছি। তাই উইকেট পেতে সুবিধা হয়েছে। এই ইনিংস বিশ্বকাপে কাজে লাগবে। অনেকটাই আত্মবিশ্বাস ফিরে পেলাম।’

সব মিলিয়ে বিশ্বকাপের আগে ভারতের দল যে অনবদ্য পারফরম্যান্স করে দেখিয়েছে তাদের একটা বেশি পরিষ্কার যে বিশ্বকাপে ভারতীয় দল অন্যতম ফেভারিট হয়ে মাঠে নামবে।