‘মাঠ নিস্তব্ধ,আমরা চাপে’সেমিফাইনাল ম্যাচে কিভাবে ভারতীয় দল জয়লাভ করেছিল এমনটা জানিয়ে দিলেন শ্রেয়স আইয়ার !!

ভারতের বিরুদ্ধে ৫ ম্যাচের সিরিজ চলাকালীন টি-২০ স্কোয়াডে বিরাট রদবদল করল অস্ট্রেলিয়া। কার্যত খোলনচলেই বদলে গেল অজি দলের। বিশ্বকাপ খেলা ৬ জন ক্রিকেটারকে সিরিজের মাঝপথেই দেশে ফেরানোর সিদ্ধান্ত নেয় অজি বোর্ড। স্টিভ স্মিথ ও অ্যাডাম জাম্পা দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচের পরেই দেশে ফেরার বিমান ধরেন। বুধবার ভারত ছেড়ে দেশে ফেরার বিমান ধরবেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মার্কাস স্টইনিস, জোশ ইংলিস ও শন অ্যাবট। উইকেটকিপার-ব্যাটার জোস ফিলিপ ও আগ্রাসী ব্যাটার বেন ম্যাকডারমট ইতিমধ্যেই অজি স্কোয়াডে যোগ দিয়েছেন।

স্মিথ-ম্য়াক্সওয়েলদের সরিয়ে নেওয়ার পরে বিশ্বকাপজয়ী অস্ট্রেলিয়া দলের একমাত্র সদস্য হিসেবে ভারত সফরে থাকছেন ট্র্যাভিস হেড। যদিও বিশ্বকাপ স্কোয়াডের সঙ্গে রিজার্ভ ক্রিকেটার হিসেবে ভারতে আসা তনবীর সঙ্গাও বাকি সিরিজের জন্য থেকে যাচ্ছেন এদেশে। বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ও ফাইনালের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হওয়া ট্র্যাভিস হেড যদিও টি-২০ সিরিজের প্রথম ২টি ম্যাচে মাঠে নামেননি।

```

গুয়াহাটির তৃতীয় টি-২০ ম্যাচে তাঁরা মাঠে নেমে পড়লে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।রায়পুরে সিরিজের চতুর্থ টি-২০ ম্যাচের আগে অস্ট্রেলিয়ার স্কোয়াডে যোগ দেবেন বেন ডার্সিস ও স্পিনার ক্রিস গ্রিন। রায়পুরের চতুর্থ টি-২০ অথবা বেঙ্গালুরুর শেষ টি-২০ ম্যাচে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে হাতেখড়ি হতে পারে গ্রিনের।

ভারতের যুব দলের কাছে যেন কোনমতেই দাঁড়াতে পারছে না অস্ট্রেলিয়ার এই ক্রিকেট দল যেখানে যথেষ্ট এক্সপেরিয়েন্স ক্রিকেটার রয়েছে যেমন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, স্টয়নিস, ওয়েড, স্টিভ স্মিথ। আর তারপরেই এক হঠকারী সিদ্ধান্ত নিয়ে নিল অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ড যদিও এই সিদ্ধান্তের পিছনে।

```

আসল কি কারণ রয়েছে সেটা অস্ট্রেলিয়া বোর্ডের তরফ থেকে এখনো পর্যন্ত প্রকাশিত করা হয়নি তাই এর কারণ নিয়ে ধোঁয়াশা থেকে যাচ্ছে। যদিও অনেক ক্রিকেট ভক্তরা এটা মনে করছেন অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল পেরে উঠছে না ভারতের সাথে, সেজন্য লজ্জার হাত থেকে বাঁচাতেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার পরিবর্তিত টি-২০ স্কোয়াড:-ম্যাথিউ ওয়েড (ক্যাপ্টেন), জেসন বেহরেনডর্ফ, টিম ডেভিড, বেন ডার্সিস, ন্যাথন এলিস, ক্রিস গ্রিন, অ্যারন হার্ডি, ট্র্যাভিস হেড, বেন ম্যাকডারমট, জোশ ফিলিপ, তনবীর সাঙ্গা, ম্যাথিউ শর্ট ও কেন রিচার্ডসন।