ডাটা এন্ট্রির কাজে সরকারের অস্থায়ী কর্মী! সুযোগ পেয়ে যে বিশাল ঘাপলা করলেন,চক্ষু চড়কগাছ

রাজ্য সরকারের লক্ষ্মীর ভাণ্ডার (Laxmir Bhanadar) প্রকল্পের মেল হ্যাক করে ভুয়ো অ্যাকাউন্ট বানিয়ে টাকা জালিয়াতির অভিযোগ দক্ষিণ দিনাজপুর (South Dinajpur) জেলার গঙ্গারামপুর থানার তিন যুবকের বিরুদ্ধে। বিষয়টি নজরে আসতেই গঙ্গারামপুরের BDO লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন থানায়। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে তিন যুবককে গ্রেফতার করল গঙ্গারামপুর থানার পুলিশ (Gangarampur Police Station)। মঙ্গলবার ধৃতদের ৭দিনের পুলিশি হেফাজত চেয়ে আদালতে তেলা হয়। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছে গঙ্গারামপুর থানার পুলিশ।

জানা গিয়েছে, কিছু দিন আগে লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের এক আবেদনকারীর তথ্যে একাধিক অসংগতি থাকায় সন্দেহ হয় ব্লক প্রশাসনের। সেই সময় জালিয়াতির বিষয়টি সামনে আসে। এরপরই বিডিও লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ পেয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃতরা হলেন নাজিমুল হক(২৭),ভসুভাষ রবিদাস(২৪) ও বিকাশ রবিদাস (২৫)। তাদের বাড়ি গঙ্গারামপুর ব্লকের জাহাঙ্গীরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের রামদেবপুর ও ফয়েজপুর এলাকায়। অভিযোগ, ধৃত তিন যুবক গঙ্গারামপুর ব্লকের অস্থায়ী ভাবে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের ডাটা এন্ট্রির কাজ করতেন।

আর সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে প্রথমে ব্লকের লক্ষীর ভান্ডারের মেল অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে এবং পরে গঙ্গারামপুর ব্লক প্রশাসনের পোর্টালে ঢুকে ভুয়ো আবেদন করতে বলে অভিযোগ। অভিযোগ ভুয়ো অ্যাকাউন্টে বানিয়ে তাতে টাকা ঢুকিয়ে প্রকল্পের টাকা নয়ছয় করতেন তারা। এমন প্রতারণার ইঙ্গিত পাওয়া মাত্রই ব্লকের বিডিও বিষয়টি নিয়ে তদন্তে শুরু করে। এরপরই জালিয়াতির বিষয়টি নজরে আসে বিডিওর।

এরপরেই গঙ্গারামপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন বিডিও দাওয়া শেরপা। অভিযোগ পাবার পরেই সোমবার গভীর রাতে তিন যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ। ঘটনায় তাপস বসাক নামে আরও এক ব্যক্তির খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ। ঘটনার পর মঙ্গলবার ৭ দিনের পুলিশি হেফাজতে চেয়ে ধৃতদের গঙ্গারামপুর মহকুমা আদালতে পেশ করে পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছে গঙ্গারামপুর থানার পুলিশ।

অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রীর প্যাড ও সই নকল করার অভিযোগ উঠল এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে৷ যদিও তাঁর নাম পরিচয় জানা যায়নি৷ শুধু জানা গিয়েছে শ্যামনগর পোস্ট অফিস থেকে চিঠিটি পাঠানো হয়েছে৷ মুখ্যমন্ত্রীর প্যাড ও সই নকল করে রেশনিং অফিসারের কাছে দুই রেশন ডিলারের বিরুদ্ধে তদন্তের আবেদন জানিয়ে চিঠি লেখার অভিযোগ উঠল অজ্রাত পরিচয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে ৷ জানা গিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্যাড ও সই নকল করে রেশনিং অফিসারের কাছে দুই ডিলারের বিরুদ্ধে তদন্তের দাবি করে চিঠি পাঠানো হয়েছে সোমবার। সেই চিঠিতে অভিযোগ করা হয়, গ্রাহকরা ঠিকমতো রেশনের সামগ্রী পাচ্ছেন না। চিঠি পাওয়ার পর ঘুম ছুটে যায় দুই রেশন ডিলারের। ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবিতে জগদ্দল থানার দ্বারস্থ হয়েছেন হয়েছেন দুই রেশন ডিলার।