মহাদেবের প্রিয় রুদ্রাক্ষ শ্রাবণ মাসে তাঁকে নিবেদন করলে কী কী শুভ ফল দেয় জেনে নিন

সনাতন দিনপঞ্জি অনুযায়ী প্রতি বছরের পঞ্চম মাস হিসাবে বিবেচিত হয় শ্রাবণ মাস। এমনিতে প্রতি মাসের আলাদা আলাদা গুরুত্ব থাকলেও শ্রাবণ মাসকে সবথেকে পবিত্র এবং গুরুত্বপূর্ণ মাস হিসেবে মনে করা হয়ে থাকে। কারণ এই মাসের সরাসরি যোগাযোগ মহাদেবের সঙ্গে হয়ে থাকে। আর তাই এই মাসটিকে শিবের আশীর্বাদ লাভের জন্য সবথেকে বেশি উপযুক্ত হিসেবে মনে করা হয়ে থাকে। চলতি বছর অর্থাৎ ২০২২ সালের ১৪ জুলাই থেকে শুরু হয়েছে শ্রাবণ মাস। আর সেক্ষেত্রে হিসেব মত ১৮ তারিখ এই মাসের প্রথম সোমবার। এছাড়াও আরও ৩টি সোমবার দ্বারা সমৃদ্ধ হচ্ছে এই বছরের শ্রাবণ মাস। এছাড়াও এই বছর শ্রাবণ মাসের সোমবার গঠিত হচ্ছে তিনটি বিশেষ যোগ। এই বিশেষ দিনগুলিতে মহাদেবকে সন্তুষ্ট করার জন্য অনেকে অনেক রকম উপায় করে থাকেন। তবে তারই মধ্যে অনন্য উপায় হল মহাদেবকে রুদ্রাক্ষ নিবেদন করা। জেনে নেওয়া যাক এর ফলে কী কী শুভ ফল লাভ হয়।

শ্রাবণের সোমবার :- সনাতন ধর্ম এবং পুরাণ অনুযায়ী শ্রাবণ মাসের সোমবারকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়ে থাকে। মহাদেবকে খুশি করার জন্য শ্রবন মাসের সোমবারকে সবচেয়ে বিশেষ বলে মনে করা হয়। যে সকল মানুষ এই সোমবার উপবাস করেন এবং মহাদেবের সম্পূর্ণ ভক্তি সহকারে পূজা করেন এবং অভিষেক করেন, তাদের সমস্ত ইচ্ছা পূরণ হয়। তবে এই বছর শ্রাবণের সোমবারের গুরুত্ব কিছুটা আলাদা। তার কারণ, এই বছর শ্রাবণ মাসে গঠিত হচ্ছে তিনটি মহাযোগ। আর যার ফলে আরও বেশি শুভ হবে শিবের উপাসনা করা।

তিনটি শুভ যোগ :- চলতি বছর, অর্থাৎ ২০২২ সালে শ্রাবণ মাস আরও বিশেষ হয়ে উঠেছে কারণ এই বছর এই মাসে বিশেষ শুভ যোগ তৈরি হচ্ছে। ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, ১৮ জুলাই শ্রাবণ মাসের প্রথম সোমবার। আর এই বিশেষ দিনে রবি যোগ, মৈনা পঞ্চমী যোগ এবং শোভন যোগ গঠিত হচ্ছে। রবি যোগে মন্ত্র সাধনার সঙ্গে মহাদেবের পূজা করলে অত্যন্ত শুভ ফল পাওয়া যায়। এইদিন মহামৃত্যুঞ্জয় মন্ত্র জপ করলে জীবনের সকল দুর্ঘটনার হাত থেকে রেহাই পাওয়া যায়। মৈনা পঞ্চমী যোগে নাগ দেবতার সঙ্গে শিবের পূজা করা খুব শুভ বলে মনে করা হয়। অন্যদিকে, শোভন যোগ গঠিত হওয়ার কারণে এইদিন উপবাস করে পূজা করা অপার সুখ, সমৃদ্ধি এবং সৌভাগ্য প্রদান করে।

শিবলিঙ্গে রুদ্রাক্ষ অর্পণ :- শ্রাবণ মাসে শিবলিঙ্গে গঙ্গাজল, বেলপত্র, মধু, কর্পূর, দুধ, চাল, সাদা চন্দন, কলকে ফুল, ও বিভূতি নিবেদন করা হয়। এই জিনিসগুলি মহাদেবের খুব প্রিয়, তবে এগুলি ছাড়াও মহাদেবের সবথেকে প্রিয় জিনিস হল রুদ্রাক্ষ। শিবের অশ্রু থেকে রুদ্রাক্ষের উৎপত্তি বলে মনে করা হয়। এই বিশেষ দিনে যদি শিবলিঙ্গে রুদ্রাক্ষ নিবেদন করা হয়, তাহলে সেই মানুষের ভাগ্য জেগে ওঠে। এবং তাঁর প্রতিটি ইচ্ছা পূরণ হয়। ভগবান শিবের অশ্রু থেকে জন্ম নেওয়া রুদ্রাক্ষ দুর্ভাগ্যকে সৌভাগ্যে রূপান্তরিত করে তোলে। এছাড়াও যদি কেউ রুদ্রাক্ষ ধারণ করতে চান তাহলে শ্রাবণ মাস হল তার সবথেকে উপযুক্ত সময়।

রুদ্রাক্ষের গুরুত্ব :- জীবনের সকল বাধা দূর করতে খুবই কার্যকরী হল রুদ্রাক্ষ। শ্রাবণ মাসে এটি প্রথমে মহাদেবকে নিবেদন করে পরে সেটি নজে ধারণ করলে অনেক শুভ ফল লাভ করা যায়। জীবনের সব বাধা কেটে যায় এটি ধারণ করলে। চতুর্মুখী, পঞ্চমুখী, একাদশমুখী রুদ্রাক্ষ ধারণ করলে জীবনে আয়, উন্নতি, সুখ সমৃদ্ধি লাভ করা যায়। সবথেকে বিরল হল একমুখী রুদ্রাক্ষ। এটি আধ্যাত্মবাদে সবথেকে প্রভাবশালী রুদ্রাক্ষ বলে পরিচিত। কিন্তু সংসারী ব্যক্তির এটি ধারণ না করাই ভালো।