২০২২ সালে ঘরের মাটিতে একটি ম্যাচও না জিতে লজ্জার রেকর্ড গড়লো বাবরের পাকিস্তান!

বিশ্ব ক্রিকেটের অন্য সমস্ত দলের মতো পাকিস্তানও একটি কম্পিটিটিভ দল যেখানে যথেষ্ট ট্যালেন্টেড কিছু ক্রিকেটার রয়েছে তবে বিগত একটা লম্বা সময় ধরে অন্তত দু’বছর ধরে পাকিস্তান ক্রিকেটে বেশ উথাল পাথাল চলছে এবং টেস্ট ক্রিকেট থেকে যেন রীতিমত গায়েব হয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান। আর পুরো ২০২২ সালে ঘরের মাটিতে কোন ম্যাচ না জিতে এক লজ্জার রেকর্ড গড়লো পাকিস্তান।

পাকিস্তানের তরফ থেকে বিগত একটা লম্বা সময় ধরে নিজেদেরকে বিশ্বসেরা দল দাবি করা হলেও সেটা সীমিত, কখনো ওয়ানডে অথবা কখনো টি-টোয়েন্টিতে দু একটা সিরিজ তারা জিতেছে। যেমন কিছুদিন আগেই নিউজিল্যান্ডের ত্রিদেশীয় সিরিজে তারা জিতেছিল তবে টেস্ট ক্রিকেটে কোনভাবেই দাগ কাটতে পারছে না পাকিস্তান। এমনকি তারা ঘরের মাটিতে পর্যন্ত জিততে পারছে না বিশ্বের বড় দলগুলির বিরুদ্ধে, তার উপরে আবার ইংল্যান্ড অস্ট্রেলিয়ার মতো দলের বিরুদ্ধে সেখানে তাদের দেশে গিয়ে জেতা সে তো অনেক দূর।

তবে পাকিস্তানের চির প্রতিদ্বন্দ্বী ভারত বরাবর অস্ট্রেলিয়া এবং ইংল্যান্ড নিউজিল্যান্ডে সিরিজ খেলে আসছে তাদের মাটিতে গিয়ে, অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে বিগত দুটি সিরিজে তাদের ঘরের মাটিতে গিয়ে ভারত জিতেছে। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ও ভারত তাদের বিগত সিরিজটি ২-২ ড্র করেছে ইংল্যান্ডের মাটিতে গিয়ে। পাকিস্তানের মতো নিজেদের ঘরের মাটিতে কোন দলের বিরুদ্ধে হারেনি ভারত। এমনকি ঘরের মাটিতে অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ পর্যন্ত করেছে ভারত। আর পাকিস্তান ঘরের মাটিতে হারের পর হার চলেই যাচ্ছে। আরে সেই কারণের জন্য এবার রীতিমত অধিনায়কত্ব থেকে হাত ধুতে চলেছে বাবর আজম এরকম সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের বেশ কিছু সদস্যকে ছেঁটে ফেলা হয়েছে যার মধ্যে অন্যতম পাকিস্তান বোর্ডের প্রধান রামিজ রাজা, সেই রামিজ রাজার পছন্দের ক্রিকেটার ছিলেন বাবর, আর বাবরকে তিনি মাথায় করে রেখেছিলেন। তাই রামিজ রাজা চলে যাওয়ায় বাবরকে কেউ অধিনায়ক থেকে সরিয়ে ফেলা হবে সেটাই স্বাভাবিক। অন্তত কোনো একটা ফর্মাটে বাবরের অধিনায়কত্ব কেড়ে নেওয়া হবে।

একদিকে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পরাজয় পাশাপাশি নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে এরকম পারফরমেন্স সবমিলিয়ে বাবরের অধিনায়কত্ব যাওয়াটা শুধু সময়ের অপেক্ষা।।