‘অকৃতজ্ঞ’, একটা ভুলের জন্য রশ্মিকার সব ছবি নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে চলেছে দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি!

দুঃসময় যেন পিছু ছাড়ছে না। আর একটু হলেই বড় বিপদে পড়তে যাচ্ছিলেন রশ্মিকা মন্দনা। কন্নড় ছবির ইন্ডাস্ট্রি নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে চলেছিল ‘পুষ্পা’-অভিনেত্রীকে। কারণও অভিপ্রেত। রশ্মিকার ঔদ্ধত্য আর উন্নাসিকতাই নাকি এর জন্য দায়ী। কী রকম? শোনা যায়, ‘অকৃতজ্ঞতা’র পরিচয় দিয়েছিলেন রশ্মিকা।কর্ণাটকে রক্ষিত শেট্টির প্রযোজনা সংস্থা, যাঁদের সঙ্গে জীবনের প্রথম ছবিটি করেছিলেন অভিনেত্রী, সেই সংস্থার নাম মুখেই আনলেন না সাক্ষাৎকারে! এতেই জলঘোলা হয়।

ভাবেনইনি কোনও দিন অভিনয়ে আসবেন। সেখান থেকে সফল নায়িকা! এক সাক্ষাৎকারে যখন নিজের অভিনয়-সফরের বর্ণনা দিচ্ছিলেন রশ্মিকা, এসে পড়েছিল প্রথম ছবি ‘কিরিক পার্টি’ ছবিটির কথা। যে ছবি করেই রাতারাতি ‘তারকা’ হয়ে যান রশ্মিকা। এ দিকে কৃতজ্ঞতাস্বরূপ প্রযোজনা সংস্থার নামটুকুও নিলেন না? এতেই খেপে যান সংস্থার সদস্যরা।আরও সমস্যার ব্যাপার, যা হয়তো অনেকেই জানেন না, প্রযোজক রক্ষিতের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন রশ্মিকা।

সম্পর্ককে আরও এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে গিয়ে আংটিবদল থেকে শুরু করে বাগ্‌দানও নাকি সেরে ফেলেছিলেন দু’জনে। কিন্তু কোনও অজ্ঞাত কারণে তাঁদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়। সেই জন্যই কি প্রসঙ্গ এড়িয়ে যেতে চেয়েছিলেন রশ্মিকা?তবে এক দল নেটাগরিক অভিনেত্রীর ‘বেইমানি’ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। পরবর্তী ছবি ‘পুষ্পা ২’ এবং ‘বরিশু’ কর্নাটকেই তৈরি হচ্ছে, সেগুলিও নিষিদ্ধ ঘোষণা করার ডাক দেন একাংশ। আগুন উস্কে যাওয়ায় প্রেক্ষাগৃহের মালিকরাও অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করতে চলেছেন, এমনই খবর।

ভামশি পাইরিপল্লির পরিচালনায় ‘বরিশু’ ছবির শুটিংয়ে ইদানীং ব্যস্ত অভিনেত্রী। বিজয় তলাপতির সঙ্গে সে ছবিতে পর্দা ভাগ করবেন তিনি।ভরভরন্ত কেরিয়ারের পাশে নিন্দার ছায়া তাঁকে বার বার পিছনে টেনে নিয়ে যাক, চান না অভিনেত্রী। তাঁর দাবি, “আমায় সবাই বুঝবেন, এমন কোনও কথা নেই। সকলের ভালবাসা পাব, এমন আশাও করি না। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, আমার বিরুদ্ধে নেতিবাচক প্রচার চালিয়ে যাবেন!”

তিনি জানান, সম্প্রতি তাঁর এমন কিছু সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছে যেগুলি থেকে ভুল তথ্য উঠে আসছে বা সেগুলির ভুল ব্যাখ্যা ঘটছে, যা শুধু তাঁর বিরুদ্ধেই যাচ্ছে না, ইন্ডাস্ট্রিতে সহকর্মীদের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কও নষ্ট করছে। যা তিনি বলেননি, সেটাই লেখা হচ্ছে! অভিনয়-জীবন নয়— তাঁর পরিবার, প্রেম, সম্পর্ক সব কিছুকেই বড় বেশি ঘৃণার চোখে দেখা হচ্ছে। তিনি শঙ্কিত! মানসিক অবসাদ হয়তো তাঁকে ঘিরে ফেলছে। কাজ করার উৎসাহ হারিয়ে ফেলছেন তিনি। তিনি জানান, শুধু মাত্র অনুরাগীদের ভালবাসা, উৎসাহই তাঁকে কাজে উদ্বুদ্ধ করে চলেছে।