আইসিসির সবথেকে বড়ো পুরস্কারে মনোনীত হলেন সুর্যকুমার যাদব! পথের কাঁটা ৩ জন!

আইসিসির বর্ষসেরা টি-২০ ক্রিকেটারের পুরস্কারের লড়াইয়ে চোখে পড়তে পারে ভারত-পাক দ্বৈরথ। যদিও দলকে বিশ্বকাপ জিতিয়ে খেতাব জয়ের জোরালো দাবিদার এক ব্রিটিশ তারকাও। দৌড়ে নাম লিখিয়েছেন জিম্বাবোয়ের লড়াকু অল-রাউন্ডারও।২০২২ সালের সার্বিক পারফর্ম্যান্সের নিরিখে আইসিসি বর্যসেরা টি-২০ ক্রিকেটারের পুরস্কারের জন্য মনোনীত চার তারকার তালিকা প্রকাশ করে বৃহস্পতিবার। ছেলেদের বিভাগে এই পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন ভারতের সূর্যকুমার যাদব।

সূর্যকুমার যাদব: ২০২২ সালে আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে সব থেকে বেশি রান করেছেন সূর্যকুমার। ৩১টি ম্য়াচে তাঁর ব্যক্তিগত সংগ্রহ সাকুল্যে ১১৬৪ রান। স্ট্রাইক-রেট ১৮৭.৪৩। সেঞ্চুরি করেছেন ২টি এবং হাফ-সেঞ্চুরি করেছেন ৯টি। চলতি বছরে একমাত্র এবং ইতিহাসের দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে এক ক্যালেন্ডার বর্ষে আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে ১০০০ রানের গণ্ডি টপকে যান সূর্যকুমার। ২০২২ সালে সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটে মোট ৬৮টি ছক্কা মেরেছেন তিনি। এক বছরে আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে এত ছক্কা আর কেউ মারতে পারেননি।এছাড়া লড়াইয়ে রয়েছেন আরো তিন ক্রিকেটার।

মহম্মদ রিজওয়ান: ২০২২ সালে ২৫টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে ৯৯৬ রান সংগ্রহ করেছেন রিজওয়ান। স্ট্রাইক রেট ১২২.৯৬। তিনি কোনও শতরান না করলেও হাফ-সেঞ্চুরি করেছেন ১০টি। পাক তারকা আইসিসির এক নম্বর টি-২০ ব্যাটসম্যানেও পরিণত হয়েছিলেন। যদিও তাঁকে বছর শেষ করতে হচ্ছে বিশ্বব়্যাঙ্কিংয়ের দ্বিতীয় স্থানে থেকে।

স্যাম কারান: ২০২২ সালে ১৯টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্য়াচে মাঠে নেমে মাত্র ৬৭ রান সংগ্রহ করলেও স্যাম কারান উইকেট নিয়েছেন ২৫টি। গত টি-২০ বিশ্বকাপের সেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার জেতেন কারান। বিশ্বকাপেই তিনি উইকেট নেন ১৩টি। আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে মাত্র ১০ রান খরচ করে ৫টি উইকেট সংগ্রহ করেন স্যাম। ইংল্যান্ডের প্রথম বোলার হিসেবে আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে ৫ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করেন তিনি।

সিকন্দর রাজা: ২০২২ সালে আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে ব্যাটে-বলে চূড়ান্ত সফল সিকন্দর রাজা। তিনি ২৪টি ম্য়াচে মাঠে নেমে ৭৩৫ রান সংগ্রহ করার পাশাপাশি তুলে নেন ২৫টি উইকেট। সারা বছরে ১৫০.৯২ স্ট্রাইক রেটে রান সংগ্রহ করেন জিম্বাবোয়ের তারকা। ৫টি হাফ-সেঞ্চুরি করেন তিনি। ২০২২ সালে সব থেকে বেশি আন্তর্জাতিক টি-২০ রান সংগ্রহকারীদের তালিকায় চার নম্বরে থাকেন রাজা। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, সিকন্দর ওভার প্রতি মাত্র ৬.১৩ রান খরচ করেন এবছর।